kalerkantho


বৈঠকে এমপি ও বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা

জলবায়ু তহবিলের স্বচ্ছতায় কমিশন হোক প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



জলবায়ু তহবিলের অর্থায়নে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে গণপ্রতিনিধিত্বশীল কমিশন গঠনের সুপারিশ করেছেন সংসদ সদস্য ও সরকারি-বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিরা। গতকাল বৃহস্পতিবার ‘জলবায়ু অর্থায়নে সুশাসন বৃদ্ধিতে জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তাঁরা এ প্রস্তাব দিয়ে বলেন, এ জন্য প্রয়োজনে আইন সংশোধন করে ‘ক্লাইমেট চেঞ্জ ট্রাস্ট ফান্ডে’ কাঠামোগত পরিবর্তন আনতে হবে।

জাতীয় সংসদের আইপিডি সম্মেলন কক্ষে নেটওয়ার্ক অন ক্লাইমেট চেঞ্জ ইন বাংলাদেশ (এনসিসিবি) আয়োজিত ওই গোলটেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ট্রাস্টের সহসভাপতি মোজাম্মেল হক। প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন সরকারি প্রতিশ্রুতি সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ, আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নবী নেওয়াজ, বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য বেগম মাহজাবিন মোর্শেদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট টিপু সুলতান। মূল বক্তব্য উত্থাপন করেন এনসিসিবির কো-অর্ডিনেটর মিজানুর রহমান বিজয়। আলোচনায় অংশ নেন অ্যাকশনএইডের তানজীর হোসেন, সিপিআরডির মো. শামছুদ্দোহা, সাংবাদিক কাওসার রহমান ও নিখিল ভদ্র, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রশিদুজ্জামান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) মিহির বিশ্বাস প্রমুখ।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই একমাত্র সরকারপ্রধান যিনি জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় অলাদা বরাদ্দ দিয়ে ফান্ড তৈরি করেছেন। এ তহবিলের জন্য সরকার যে অর্থ বরাদ্দ করছে, সেটি সঠিকভাবে খরচ হচ্ছে কি না তা মনিটর করার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে একটি শক্তিশালী কমিশন গঠন করার সুপারিশ করেন।

নবী নেওয়াজ বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনসংক্রান্ত তহবিল ব্যবহারে সমন্বয় নেই। সমন্বয়হীনতার কারণে সঠিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে এর অর্থ পৌঁছাচ্ছে না।

টিপু সুলতান বলেন, সংসদ সদস্যরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলেও জনগণের জন্য প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে তাঁদের কোনো ক্ষমতা নেই।



মন্তব্য