kalerkantho


লক্ষ্মীপুরে স্বজনদের বেঁধে রেখে দুই বোনকে ধর্ষণ

ঈশ্বরদীতে স্কুলছাত্রীকে নির্যাতন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



লক্ষ্মীপুরে পরিবারের অন্য সদস্যদের বেঁধে দুই বোনকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পাবনার ঈশ্বরদীতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে এক বৃদ্ধ। গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় সালিসে মীমাংসা করায় ইউপি সদস্যসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। এ ব্যাপারে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

লক্ষ্মীপুর : পরিবারের অন্য সদস্যদের বেঁধে রেখে লক্ষ্মীপুরে দুই বোনকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি। তবে পুলিশ বলেছে, থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলার পর দুই বোনের ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে। গত শুক্রবার সদর উপজেলার চরভূতা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় সহকারী পুলিশ সুপার ও সদর থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত বাহার ও ফারুককে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

দুই বোন ও পরিবারের সদস্যরা জানায়, ভোরে দুই বোন ঘর থেকে বের হলে আগ থেকে ওত পেতে থাকা ফারুকসহ ১০-১২ জনের এক দল লোক তাদের মুখ চেপে ধরে পুকুরপারে নিয়ে যায়। এ সময় ফারুকের লোকজন ঘরে ঢুকে তাদের মা, নানি ও বড় বোনকে মারধরসহ হাত-মুখ বেঁধে রাখে। একপর্যায়ে ফারুক ও বাহার ওই দুই বোনকে ধর্ষণ করে হাত-পা বেঁধে রেখে পালিয়ে যায়। পরে চিৎকারে শুনে আশপাশের লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ওই দুই বোনের মা বাদী হয়ে সদর থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোসলেহ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে এখনো আটক করা যায়নি।’

ঈশ্বরদী (পাবনা) : ঈশ্বরদীর বড়ইচারা গ্রামে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তাকে পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটির পর বাড়ি ফেরার পথে হজরত আলী হজো (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ ওই ছাত্রীর মুখ চেপে ধরে পাশের লিচুবাগানে নিয়ে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে পুলিশ ধর্ষক হজোকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে। ধর্ষক হজো একই এলাকার প্রভাবশালী রবিউল, সেন্টু ও পিন্টুর বাবা।

ওই ছাত্রীর বাবা বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটির পর আমার মেয়ে বাড়ি ফিরছিল। বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৩টার দিকে সে কাঁদতে কাঁদতে রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়িতে আসে। বাড়ির লোকজন প্রথমে বুঝতে না পেরে তাকে গোসল করাতে গেলে বিষয়টি ধরা পড়ে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে সে জ্ঞান হারালে তাকে পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তার জ্ঞান ফিরলে সে বিস্তারিত বিষয়টি জানায়।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই বিকাশ চক্রবর্তী বলেন, ‘তাকে বিজ্ঞ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করিয়ে জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।’ 

গোপালগঞ্জ : কোটালীপাড়ায় প্রথম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার সালিস মীমাংসা করায় এক ইউপি সদস্যসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

জানা গেছে, গত বুধবার উপজেলার হরিণাহাটি গ্রামের মৃত মোফাচ্ছের মোল্লার ছেলে সালাম মোল্লা (৪৮) তাঁর বাড়ির পাশের প্রথম শ্রেণির এক ছাত্রীকে চকোলেটের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে এলে সালাম পালিয়ে যান। ঘটনাটি জানাজানি হলে বান্ধাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আলম গাজী গত শুক্রবার রাতে সালিসের মাধ্যমে সালাম মোল্লাকে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ সময় ওই ছাত্রীর মাকে মামলা না করার জন্য হুমকি দেওয়া হয়। পরে ওই ছাত্রীর মা ওই সালিসে সন্তুষ্ট না হয়ে গতকাল শনিবার কোটালীপাড়া থানায় একটি অভিযোগ করেন। পুলিশ ধর্ষণচেষ্টাকারী সালাম মোল্লা ও মীমাংসাকারী আলম গাজীকে গ্রেপ্তার করে। কোটালীপাড়া থানার অফিসার পরিদর্শক মোহাম্মদ কামরুল ফারুক বলেন, ধর্ষণচেষ্টা মামলা এভাবে মীমাংসা হওয়ার বিধান নেই। তাই তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পটুয়াখালী : মির্জাগঞ্জের কাঁঠালতলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. আব্দুল গাফ্ফারের বিরুদ্ধে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মামলা করা হয়েছে। এদিকে গতকাল শনিবার সকালে ওই শিক্ষককে অবিলম্বে গ্রেপ্তারসহ তাঁর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় চত্বরে মানববন্ধন করেছে। মির্জাগঞ্জ থানার ওসি মো. মাসুমুর রহমান বিশ্বাস বলেন, ওই শিক্ষককে গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপর রয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হারুন-অর-রশিদ বলেন, এ ব্যাপারে আগামী সোমবার জরুরি বৈঠক ডেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হবে। গত ১২ সেপ্টেম্বর প্রাইভেট পড়তে গেলে ওই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন শিক্ষক আব্দুল গাফ্‌ফার।

 

 



মন্তব্য