kalerkantho


তদন্তের মুখোমুখি প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গী!

মাগুরা প্রতিনিধি   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



তিনি একজন স্কুল শিক্ষক। কিন্তু থাকেন প্রতিমন্ত্রীর কাছাকাছি। রাজনৈতিক কর্মসূচির বাইরেও তিনি সঙ্গী হন

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদারের। এলাকার মানুষ তাঁকে প্রতিমন্ত্রীর এপিএস বলেই চেনে। কর্মস্থলে তিনি বেশির ভাগ সময় থাকেন অনুপস্থিত। এহেন কর্মের জন্য বরইচারা অভয়া চরণ বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিশির কুমার এখন তদন্তের মুখোমুখি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

মাগুরা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা তথ্য অফিস আয়োজিত সরকারের ১০ বছরের সাফল্য নিয়ে মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক আতিকুর রহমানের কাছে একটি অভিযোগ উত্থাপন করেন শালিখার একজন সাংবাদিক। তিনি জানান, বরইচারা অভয়া চরণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বাংলা বিষয়ের সহকারী শিক্ষক শিশির কুমার বেশির ভাগ সময় কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকেন। পাঁচ বছরের অধিক সময় ধরে তিনি স্কুলে পাঠদান থেকে বিরত। মাসে দুই একবার স্কুলে গিয়ে স্বাক্ষর করে আসেন পুরো মাসের। বেতন তুলে নেন নিয়মিত।

গুরুতর এ অভিযোগ পেয়ে জেলা প্রশাসক আতিকুর রহমান তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদ হোসেনকে বিষয়টি তদন্তের জন্যে দায়িত্ব দেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে শিশির সরকার বলেন, ‘মাঝেমধ্যে নানা কারণে স্কুলে অনুপস্থিত থাকতে পারি। সেটি প্রধান শিক্ষকের অনুমতির বাইরে নয়। আর আমি প্রতিমন্ত্রীর নিয়োগকৃত এপিএস নই। তবে মাঝেমধ্যে তাঁর সঙ্গে থাকি। স্কুলে না যাওয়া কিংবা সারা মাসের স্বাক্ষর একবারে করার অভিযোগ সত্য নয়।’

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মমতা মজুমদার দাবি করেন, ‘শিশির কুমার নিয়মিত স্কুল করেন।’

 

 



মন্তব্য