kalerkantho


পাথরঘাটায় তরুণীকে ধর্ষণ ও হত্যা

ছাত্রলীগের চার নেতাসহ অভিযোগপত্রে সাতজন

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ছাত্রলীগের চার নেতাসহ অভিযোগপত্রে সাতজন

বরগুনার পাথরঘাটায় তরুণীকে গণধর্ষণ ও হত্যার পর লাশ গুমের ঘটনায় ছাত্রলীগের চার নেতাসহ সাতজনের নামে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দিয়েছে ডিবি পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মঞ্জুরুল ইসলাম মামলাটি পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য বরগুনা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে স্থানান্তরের আদেশ দেন।

উপজেলা ছাত্রলীগের সহসম্পাদক মো. মাহমুদ, পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রুহি আনান ডেনিয়েল ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ছোট্ট, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহিদুল ইসলাম রায়হান এবং পাথরঘাটা কলেজের নৈশপ্রহরী মো. জাহাঙ্গীর হোসেনসহ আরো দুজনের নাম ওই অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়। এর মধ্যে নৈশপ্রহরী জাহাঙ্গীর হোসেন জামিনে থাকলেও ছাত্রলীগের চার নেতা জেলহাজতে রয়েছেন। বাকি দুজন পলাতক।

এদিকে এক বছর তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র দেওয়া হলেও ধর্ষণের পর হত্যার শিকার তরুণীর পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি ডিবি পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও বরগুনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক মো. বশির আলম বলেন, ‘দেশের বিভিন্ন স্থানে ওই তরুণীর গলিত লাশের ছবি আমরা পাঠিয়েছি, কিন্তু কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি। এমনকি রিমান্ডে বারবার চেষ্টা করেও আসামিদের মুখ থেকে তরুণীর পরিচয় বের করা যায়নি।’

২০১৭ সালের ১০ আগস্ট পাথরঘাটা কলেজের পশ্চিম পাশের পুকুর থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক তরুণীর গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই বছরের ১১ ও ১২ নভেম্বর ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদ ও নৈশপ্রহরী জাহাঙ্গীর।

 



মন্তব্য