kalerkantho


কালের কণ্ঠ’র প্রতিবেদনে খামারবাড়ির ব্যাখ্যা

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



গতকাল বুধবার কালের কণ্ঠ’র প্রথম পাতায় ‘খাত মাদকের চালান মুক্ত খামারবাড়ির প্রতিবেদনে!’ বিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (খামারবাড়ি) কর্তৃপক্ষ তাদের ব্যাখ্যা দিয়েছে। গতকাল অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ উইংয়ের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ড. মো. আজহার আলী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনটিতে কিছু তথ্যবিভ্রাট রয়েছে। জিপিও বৈদেশিক পার্সেল শাখায় কোনো কৃষিপণ্য আসার পরে সংশ্লিষ্ট শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা উদ্ভিদ সংগনিরোধ উইংয়ে চিঠি পাঠিয়ে পণ্য ছাড়করণের অনুরোধ করে থাকেন। সে অনুযায়ী বিমানবন্দরে উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপপরিচালককে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেন উদ্ভিদ সংগনিরোধ উইংয়ের পরিচালক। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার লিখিত প্রতিবেদন এবং সুপারিশ পেলে পণ্যটি ছাড়করণের জন্য পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ফের শাহজালালের উপপরিচালকের কাছে পাঠানো হয়। বৈদেশিক পার্সেল শাখার পণ্য ছাড়করণে উদ্ভিদ সংগনিরোধ উইংয়ে সরাসরি পরীক্ষা ও ছাড়পত্র হয় না। এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন কেন্দ্রের কর্মকর্তা দায়িত্বপ্রাপ্ত। উদ্ভিদ সংগনিরোধ উইং শুধু আমদানি-রপ্তানি কৃষিপণ্যের রোগবালাই বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত। জিপিও বৈদেশিক শাখায় আসা পণ্যের বাণিজ্যিক নাম, খাওয়ার যোগ্য কি না এবং গুণগত মান সম্পর্কে উদ্ভিদ সংগনিরোধ শাখা প্রতিবেদন বা ছাড়পত্র দেয় না।

 

 



মন্তব্য