kalerkantho


ভূমিকম্পে কাঁপল দেশ, মাত্রা ৫.৩ উৎপত্তি আসামে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ফের ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল দেশ। গতকাল বুধবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা। ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল ভারতের আসামের কোঁকড়াঝাড় এলাকা। আবহাওয়া অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৫.৩। ঢাকার আগারগাঁওয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভূকম্পন পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থলের দূরত্ব ছিল ২৯৩ কিলোমিটার। মাঝারি ভূকম্পনে আতঙ্ক দেখা দেয় মানুষের মাঝে। অনেকে অফিস-আদালত ও বাসাবাড়ি থেকে রাস্তায় বের হয়ে আসে। তবে হতাহত কিংবা ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

আবহাওয়া অফিসের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের পাওয়া তথ্য মতে বুধবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে ভূকম্পন অনভূত হয়। রিখটার স্কেলে মাত্রা ছিল ৫.৩। আমাদের পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে উৎপত্তিস্থলের দূরত্ব ২৯৩ কিলোমিটার। এটি ছিল মাঝারি মানের ভূমিকম্প।’ ২০১৬ সালে প্রায় সাত মাত্রার দুটি ভূমিকম্পে বাংলাদেশ কেঁপে ওঠে। উৎপত্তিস্থল ছিল মিয়ানমার।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ দপ্তরের (ইউএসজিএস) তথ্য বলছে, ভূকম্পের উৎপত্তিকেন্দ্র ছিল ভূপৃষ্ঠের প্রায় ১০ কিলোমিটার গভীরে, মাত্রা ছিল ৫.৬।

ভারতের গণমাধ্যমের খবর, আসামের ভূমিকম্পে কলকতা পর্যন্ত কেঁপে উঠেছে। সিকিম মেঘালয়, শিলিগুড়ি, কোচবিহার, মালদহ ও মুর্শিদাবাদে ভূমিকম্প আতঙ্কে অনেকে রাস্তায় নেমে আসে। বাংলাদেশেও সিলেট, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, কুড়িগ্রামসহ অনেক জেলায় অনেকে ভয়ে রাস্তায় নেমে যায়। তবে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

বিশেষজ্ঞরা বরাবরই বলে আসছেন, বাংলাদেশ ভূমিকম্পের বড় ঝুঁকিতে আছে। ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশের অবস্থান যেখানে, সেখানে ভূমিকম্পের বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে।

 



মন্তব্য