kalerkantho


মেয়র বলে কথা...

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



মেয়র বলে কথা...

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলায় গত রবিবার বিকেলে মাধ্যমিক বিদ্যালয় পর্যায়ের ফুটবল ফাইনাল খেলা বন্ধ করে দিয়েছেন পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী। খেলতে না পেরে গণিপুর জাফরপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিশুরা কেঁদে বাড়ি ফিরে গেছে।

এদিকে গতকাল সোমবার জয়পুরহাট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত জেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় আক্কেলপুর উপজেলার কোনো বিদ্যালয় অংশ নিতে পারেনি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, আক্কেলপুর উপজেলার মাধ্যমিক পর্যায়ের জাতীয় গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার ফুটবল ফাইনাল খেলার আয়োজন ছিল গত রবিবার বিকেল ৪টায়। খেলার স্থান নির্ধারণ করা ছিল আক্কেলপুর সরকারি ফজরউদ্দিন (এফইউ) পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ। এতে প্রধান অতিথি করা হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালাহউদ্দিন আহমেদকে। বিশেষ অতিথি যথাক্রমে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোকছেদ আলী, সাধারণ সম্পাদ ও পৌর মেয়র অবসর চৌধুরীসহ দুই উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যানকে। সভাপতি করা হয়েছে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কমলকে।

এদিন বিকেল ৪টার নির্ধারিত সময়ে অন্যরা না এলেও সভাপতি ও আয়োজক উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ টি এম জিল্লুর রহমান মাঠে এসে ফাইনাল খেলার আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন। সাড়ে ৪টার দিকে বিশেষ অতিথি মেয়র মাঠে এসে দেখতে পান তাঁদের ছাড়াই খেলা শুরুর আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়েছে। তিনি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রচণ্ড গালমন্দ করেন। পাশাপাশি উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কমলকেও অভিযোগ করেন প্রধান ও বিশেষ অতিথিদের বাদ দিয়ে কেন খেলা শুরুর আনুষ্ঠানিকতা শেষ করা হলো? এরপর তাঁর লোকজন মঞ্চে থাকা পুরস্কার ভাঙচুর করলে মেয়র খেলা বন্ধের নির্দেশ দেন। ফলে ফাইনাল খেলা ভণ্ডুল হয়ে যায়। দুটি বিদ্যালয়ের খেলোয়াড়, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও দর্শকরা চরম ক্ষোভ নিয়ে যে যার মতো বাড়ি ফিরে যায়। এ সময় উভয় বিদ্যালয়ের অনেক খেলোয়াড়কে কাঁদতে দেখা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক বলেন, ‘ভুল হতেই পারে। তাই বলে ২২টি বিদ্যালয়ের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে চূড়ান্ত পর্বে এসে আনুষ্ঠানিকতার ভুল ধরে ফাইনাল খেলা বন্ধ করতে হবে? তাঁরা তো আমাদের এলাকার রাজনৈতিক অভিভাবক। এই খেলা বন্ধ হওয়ার ফলে সোমবার জেলা পর্যায়ে আক্কেলপুর থেকে কোনো স্কুলই অংশ নিতে পারল না। এর জবাব কে দেবে?’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অভিযোগ করেন, ‘উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কমল বিএনপি নেতা। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে জামায়াতপন্থী ওই কর্মকর্তা খেলা শুরুর সময় উভয় দলের খেলোয়াড়দের কাছে সরকারবিরোধী ব্রিফ দিয়েছেন, যার প্রমাণ আছে। সব কিছু শুনে খেলা বন্ধ করা হয়েছে। তবে কোনো ভাঙচুর করা হয়নি। পুরস্কারের তিনটি প্লেট ভেঙে গেছে।’

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কমল বলেন, ‘খেলা শুরুর আনুষ্ঠানিকতার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল পুরস্কার বিতরণ পর্ব; যে পর্ব অতিথিদের জন্যই সংরক্ষিত ছিল। বিষয়টি ওভারলুক (এড়িয়ে যাওয়া) করলে ভালো হতো।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রধান অতিথি করা হলেও খেলার দিনক্ষণ কিছুই আমাকে আগে জানানো হয়নি। এ কারণে খেলায় উপস্থিত থাকতে পারিনি। শুনেছি, বিশৃঙ্খলার কারণে খেলাটি আর হয়নি।’

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ টি এম জিল্লুর রহমান বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে পরামর্শ ও অনুমতি নিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। কিন্তু পৌর মেয়র মাঠে এসে ক্ষিপ্ত হয়ে খেলা বন্ধ করে দিয়েছেন; যার ফলে ফাইনাল খেলা আর হয়নি।’



মন্তব্য