kalerkantho


রাজধানীতে দরজা ভেঙে মিলল গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ

ইডেন শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানীর মোহাম্মদপুরে মোহাম্মদীয়া হাউজিং এলাকায় কয়েক দিন ধরে তালাবদ্ধ থাকা একটি বাসা থেকে দুর্গন্ধ আসার পর দরজা ভেঙে পাওয়া গেল এক গৃহবধূর ঝুলন্ত ও গলিত লাশ। তাঁর নাম মোরশেদা জাহান (২২)। এ ছাড়া রামপুরা এলাকার একটি বাসা থেকে শম্পা বিশ্বাস (২৬) নামে ইডেন কলেজ শিক্ষার্থীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য তাঁদের লাশ ঢাকা মেডিক্যাল ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানায়, মোহাম্মদীয়া হাউজিং লিমিটেডের ৬ নম্বর সড়কের একটি বাসার সপ্তম তলায় থাকতেন গৃহবধূ মোরশেদা। তাঁর ফ্ল্যাটের দরজা কয়েক দিন ধরে বন্ধ ছিল। গত বুধবার রাতে ওই বাসা থেকে দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকায় আশপাশের লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। এরপর পুলিশ গিয়ে ওই বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর গলিত লাশ উদ্ধার করে। তবে তাঁকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখে স্বামী পালিয়ে থাকতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জানতে চাইলে মোহাম্মদপুর থানার এসআই মুকুল রঞ্জন বলেন, ঘটনাটি রহস্যজনক। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে নাকি অন্য কোনো কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে তার তদন্ত চলছে। ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী সজীব মিয়াও জড়িত থাকতে পারেন। তিনি পলাতক রয়েছেন। তাঁর খোঁজ চলছে।

রামপুরায় নিহত শম্পা বিশ্বাস ইডেন মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে গণিত বিভাগ থেকে এ বছর মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছেন। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার সময় রামপুরায় বোনের বাসা থেকে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। এই শিক্ষার্থী মাগুরা জেলার শালিকা উপজেলার খগেন্দ্র নাথের মেয়ে। ঢাকার রামপুরা তিতাশ রোড এলাকায় বোনের সঙ্গে তিনি থাকতেন। এর আগেও একবার অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে তিনি অসুস্থ হয়েছিলেন।

নিহত শম্পার মামাতো বোন বিউটি রানী ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে সাংবাদিকদের জানান, একটি ছেলের সঙ্গে শম্পার দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এই সম্পর্কের অবনতির কারণে মানসিক সমস্যা তৈরি হয়।

রামপুরা থানা উপপরিদর্শক (এসআই) হুমায়ন কবির বলেন, শম্পা বিশ্বাসের মৃত্যুর তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে তাঁর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

 



মন্তব্য