kalerkantho


ভোলায় স্বাধীনতা জাদুঘর পরিদর্শনে বাণিজ্যমন্ত্রী

ভোলা প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ গতকাল রবিবার সকালে ভোলায় স্বাধীনতা জাদুঘর পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তাঁর সফরসঙ্গী ছিলেন বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজটোয়েন্টিফোরের সিইও নঈম নিজাম, ৭১ টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক মোজাম্মেল বাবু, সাংবাদিক ও কলামিস্ট পীর হাবিবুর রহমান এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক মো. এ আরাফাত। অতিথিরা স্বাধীনতা সংগ্রামের ঐতিহাসিক বিভিন্ন নিদর্শন, স্থিরচিত্র ও স্বাধীনতার সংগ্রামবিষয়ক মূল্যবান দলিলসহ বিভিন্ন স্মারকগ্রন্থ প্রত্যক্ষ করেন।

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ফাতেমা খানম ট্রাস্টের অধীনে প্রতিষ্ঠিত এই স্বাধীনতা জাদুঘরটি এ বছরের ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। ভোলা শহর থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দূরে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থান বাংলাবাজারে বাণিজ্যমন্ত্রীর মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত ফাতেমা খানম কমপ্লেক্সে তিন বছর আগে জাদুঘরটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। 

বিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ট নিদর্শন হিসেবে স্বাধীনতা জাদুঘরটিতে তিনটি গ্যালারি রয়েছে। প্রথম তলার গ্যালারিতে এক পাশে ইতিহাস ঐতিহ্য, প্রত্নতাত্তিক নিদর্শন, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, সাতচল্লিশে দেশ ভাগ এবং ভাষা আন্দোলনের দুর্লভ ছবি ও তথ্য রয়েছে। অন্যপাশে রয়েছে লাইব্রেরি ও গবেষণাগার। একই তলায় রয়েছে মাল্টিমিডিয়া ডিসপ্লে হলরুম। দ্বিতীয় তলায় রয়েছে ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধের আগ পর্যন্ত ইতিহাসের মুহূর্তগুলোর চিত্রকল্প। তৃতীয় তলায় রয়েছে যুক্তফন্ট, আটান্নর আন্দোলন, পাকিস্তানের সামরিক শাসন, ছিষট্টির আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণ-আন্দোলন, সত্তরের নির্বাচন, ৭ই মার্চের ভাষণ, একাত্তরের মক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর আত্মত্যাগের দুর্লভ আলোকচিত্র। এ ছাড়া রয়েছে বঙ্গবন্ধুর সব ভাষণের অডিও ও ভিডিও ডিজিটাল প্রদর্শনী। দর্শনার্থীরা ডিজিটাল টাচস্কিন ব্যবহার করে যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত ও তথ্য জানতে পারবেন।

 

 



মন্তব্য