kalerkantho


খালেদার মুক্তি দাবি শত নাগরিক কমিটির

রাজধানীর থানায় থানায় বিএনপির ‘বিক্ষোভ’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ জুন, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তাঁর সুচিকিৎসার দাবিতে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ হয়েছে রাজধানীয় থানায় থানায়। গতকাল রবিবার পৃথক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

উত্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়, বাড্ডায় ফুজি টাওয়ার থেকে শুরু হয়ে মেরুল বাড্ডা বাজার, পল্লবী, রূপনগর, মিরপুর, দারুসসালাম, শাহ আলী ও কাফরুল থানায় মিছিল হয়েছে। ভাসানটেক ও ক্যান্টনমেন্ট থানায় বিক্ষোভ মিছিল শুরুর প্রস্তুতিতে পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়। তেজগাঁও, তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল, শেরেবাংলানগর, মোহাম্মদপুর, আদাবর, গুলশান, বনানী ও রামপুরা থানায় মিছিল হয়েছে। এ ছাড়া ভাটারা, খিলক্ষেত, বিমানবন্দর, উত্তরা পশ্চিম, উত্তরা পূর্ব, দক্ষিণখান, উত্তরখান, তুরাগ ও উত্তরা পশ্চিম থানায় বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

এদিকে শাহবাগ থানার মিছিল মুক্তাঙ্গন থেকে জিরো পয়েন্ট হয়ে পীর ইয়ামেনী মার্কেটের সামনে দিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ হয়ে গোলাপশাহ মাজারে পুলিশি বাধার মুখে মিছিলটি শেষ হয়। শাহবাগ থানার অন্য একটি বিক্ষোভ মিছিল বিজয়নগর পানির ট্যাংকির সামনে থেকে শুরু করে বিভিন্ন সড়ক অতিক্রম করে পল্টন মোড়ে এলে পুলিশের ধাওয়ায় মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। কদমতলী থানার মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে দোলাইরপাড় বাসস্ট্যান্ডের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পোস্তা থেকে শুরু হয়ে ওয়াটার ওয়ার্কস রোড প্রদক্ষিণ করে চকবাজার মোড়ে গিয়ে শেষ হয় চকবাজার থানার মিছিল। কামরাঙ্গীর চর থানার মিছিলটি মাদবর বেড়িবাঁধ প্রধান সড়ক থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে বেড়িবাঁধ প্রধান সড়কে গিয়ে শেষ হয়। আরকে মিশন রোড থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাবের সামনে গিয়ে শেষ হয় ওয়ারী থানার মিছিল। এছাড়া গেণ্ডারিয়া, বংশাল, ডেমরা, শ্যামপুর, রমনা, খিলগাঁও, মুগদা, পল্টন, মতিঝিল, সবুজবাগ, শাহজাহানপুর, হাজারীবাগ, নিউ মার্কেট, সূত্রাপুর, কোতোয়ালি, যাত্রাবাড়ী থানার নেতারা মিছিল করেছেন।

শত নাগরিক কমিটির বিবৃতি : এদিকে ঈদের আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছে শত নাগরিক জাতীয় কমিটি। গতকাল এক বিবৃতিতে তাঁরা এ দাবি করে।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমদ, বিচারপতি মোহাম্মদ আব্দুর রউফ, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, প্রফেসর মাহাবুব উল্লাহ, প্রফেসর আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী,  প্রফেসর মোস্তাহিদুর রহমান, আলমগীর মহিউদ্দিন, ডা. এম এ আজিজ, ড. রেজোয়ান সিদ্দিকী, প্রফেসর জেড এন তাহমিদা খাতুন, ড. আক্তার হোসেন খান, ড. লুত্ফর রহমান, আবদুল হাই শিকদার প্রমুখ।



মন্তব্য