kalerkantho


কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রশিক্ষণ ২১ জুন থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১০ জুন, ২০১৮ ০০:০০



কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রশিক্ষণ ২১ জুন থেকে

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কার্যক্রমে জড়িত প্রায় ৯ হাজার ভোট কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা  বাহিনীর কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ শুরু হবে ঈদের পর আগামী ২১ ও ২২ জুন। আর আইন-শৃৎঙ্খলা বাহিনীর ৫০৩ কর্মকর্তার প্রশিক্ষণ হবে ২৪ জুন।

রিটার্নিং অফিসার রকিব উদ্দিন মণ্ডল জানান, সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই প্রশিক্ষণ চলবে। একসঙ্গে স্থান সংকুলান না হওয়ায় প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডি ও পোলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ হবে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট হাই স্কুল, ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) হাই স্কুল, ব্রির প্রগতি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জয়দেবপুর সরকারি গার্লস হাই স্কুল ও রানী বিলাসমণি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে। অন্যদিকে আইন-শৃৎঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামের হলরুমে।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও গাজীপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তারিফুজ্জামান জানান, গাজীপুর সিটি নির্বাচনে মোট ভোটকেন্দ্র ৪২৫টি। মোট ভোটকক্ষ দুই হাজার ৭৬১টি। এ জন্য ৪২৫ জন প্রিসাইডিং অফিসার ও দুই হাজার ৭৬১ সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং প্রতিটি ভোটকক্ষে দুজন করে মোট পাঁচ হাজার ৫২২ জন পোলিং অফিসারকে এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে সব ক্ষেত্রে ৫ শতাংশ রিজার্ভ কর্মকর্তাকেও প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সব মিলিয়ে প্রশিক্ষণার্থীদের সংখ্যা প্রায় ৯ হাজার।

ছয় কেন্দ্রে ইভিএম, তিন কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ৪২৫ ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ছয়টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ব্যবহার করে ভোট গ্রহণ করা হবে। এ জন্য নির্বাচন কমিশনে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের চাপুলিয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (কেন্দ্র নং ১৫৪, ভোটার দুই হাজার ৪৮০) ও চাপুলিয়া মফিজউদ্দিন খান উচ্চ বিদ্যালয়  (কেন্দ্র নং ১৫৫, ভোটার দুই হাজার ৫৫২), ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম জয়দেবপুরের মারিয়ালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র-১ (কেন্দ্র নং ১৭৪, ভোটার দুই হাজার ৫৬২) ও মারিয়ালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়  কেন্দ্র-২  (কেন্দ্র নং ১৭৫, ভোটার দুই হাজার ৮২৭), ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের রানী বিলাসমণি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র-১  (কেন্দ্র নং ১৯১, ভোটার এক হাজার ৯২৭) ও রানী বিলাসমনি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র-২  (কেন্দ্র ১৯২, ভোটার দুই হাজার ৭৭ জন)।

রিটার্নিং অফিসার রকিব উদ্দিন মণ্ডল জানান, ভোটকেন্দ্রের অবস্থা এবং সার্বিক পরিস্থিতি নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে বসে পর্যবেক্ষণের জন্য তিনটি ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের প্রস্তাব করা হয়েছে। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে গাজীপুর সরকারি মহিলা কলেজ কেন্দ্র, কানাইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও টঙ্গীর আউচপাড়া এলাকার বসির উদ্দিন উদয়ন একাডেমি ভোটকেন্দ্র। কেন্দ্রগুলো চূড়ান্ত হওয়ার পর ওই এলাকার ভোটারদের নিয়ে ইভিএমে ভোট দেওয়ার মহড়া অনুষ্ঠিত হবে।

গাজীপুর সিটির ভোটগ্রহণের কথা ছিল গত ১৫ মে। উচ্চ আদালত নির্বাচন স্থগিত করায় ওই তারিখে ভোট হয়নি। পরে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করলে নির্বাচন কমিশন আগামী ২৬ জুন ভোটের নতুন তারিখ ঠিক করে।



মন্তব্য