kalerkantho


ইউনাইটেড হাসপাতালে খালেদার চিকিৎসা দাবি বিএনপির

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



ইউনাইটেড হাসপাতালে খালেদার চিকিৎসা দাবি বিএনপির

কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করা হচ্ছে। জেল কোডের বাইরে কিছু করতে হলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা করা হবে।

গতকাল রবিবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। বৈঠকে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠক শেষে দুপুর সোয়া ১২টার দিকে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান। এরপর কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘কারাগারে বিএনপি চেয়ারপারসন গুরুতর অসুস্থ। হাঁটতে পারছেন না। তাঁর দ্রুত সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি। চিকিৎসার জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা উপযুক্ত স্থানে করার কথাও বলেছি। আমরা বলেছি, ইউনাইটেড হাসপাতালে এর আগেও ওনার পরীক্ষা হয়েছে এবং সেখানকার যাঁরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন এবং ডাক্তার তাঁদের ওপর আস্থা আছে। কাজেই চাইলেই তাঁরা সেখানে করাতে পারেন। এতে অন্য কারো অনুমতির দরকার হয় না। এ জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কারা কর্তৃপক্ষ যথেষ্ট। কয়েক দিন আগে পিজি হাসপাতালেও তাঁকে নিয়ে গিয়েছিলেন।’

নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য ইতিবাচক। উনি আইজি প্রিজন্সকে ডেকে নিয়ে এসেছিলেন। ওনার সামনেই কথা হয়েছে। যেখানে ওনার (খালেদা জিয়া) ভালো চিকিৎসা বা পরীক্ষা করা সম্ভব সেখানে করার ব্যাপারে উনি (স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী) তাঁর সম্মতির কথা জানিয়েছেন। এখন আমরা অপেক্ষা করব আইজি প্রিজন্স সাহেব কী ব্যবস্থা নেন। আমরা আশা করব, ইউনাইটেড হাসপাতালে দেশনেত্রীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।’ তিনি বলেন, ‘তাঁর (খালেদা) ফিজিওথেরাপি নেওয়া প্রয়োজন। এটা দু-এক দিন নয়, ধারাবাহিকভাবে বেশ কিছু দিন দরকার হবে। সেটা জেলখানায় সম্ভব নয়। অন্য কেউ এসে শিখিয়ে দিয়ে যাবে আর জেলখানার নার্সরা করবে—এটা গ্রহণযোগ্য না। আপনারা জানেন, ফিজিওথেরাপিতে ভুল হলে সেটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে, রোগের জন্য আরো ক্ষতির কারণ হতে পারে।’ ওই সময় খালেদা জিয়ার প্যারল (শর্ত সাপেক্ষে সাময়িক মুক্তি) দাবি করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যাঁরা এসব প্রশ্ন করেন, তাঁরা বিশেষ উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করেন।’

পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) আগে থেকেই কতগুলো রোগে ভুগছেন। আমাদের চিকিৎসকরা তাঁর চিকিৎসা দিচ্ছেন। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বঙ্গবন্ধুতে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তার পরও তিনি কয়েকজন চিকিৎসকের কথা বলেছেন যাঁরা তাঁর চিকিৎসা দিতেন। সেসব চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘কৃত্রিম হাঁটু থাকলে সব মেশিনে এমআরআই করা যায় না। এ ধরনের মেশিন ইউনাইটেডে রয়েছে জানিয়ে দুই নেতা সেখানকার কথা বলেছেন। এ বিষয়ে আমাদের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেব। তাঁদের (বিএনপির দুই নেতা) এটাও বলেছি, যা যা প্রয়োজন আমরা তাই করছি এবং সামনে যা প্রয়োজন হবে, জেল কোড অনুযায়ী হবে। জেল কোডের বাইরে যদি কিছু করতে হয় তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।’

খালেদা জিয়া খুবই অসুস্থ কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘কতগুলো রোগে তিনি আগে থেকেই ভুগতেন। তাঁর চিকিৎসার জন্য যা প্রয়োজন হবে, সেই ব্যবস্থাই নেব।’ ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার ক্ষেত্রে কোনো বাধা আছে কি না জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘জেল কোড অনুযায়ী সরকারি যে চিকিৎসাকেন্দ্রগুলো রয়েছে, সেগুলোর একটা নিয়মকানুন রয়েছে। আমরা সে জায়গা থেকে বলছি যদি প্রয়োজন হয় সিদ্ধান্ত নেব।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, আগামী ২৫ এপ্রিল বিএনপি একটি মানববন্ধন কর্মসূচি এবং ১ মে শ্রমিক দিবস উপলক্ষে শ্রমিক দল কর্মসূচি করতে চায়। ওই দুটি কর্মসূচিতে যাতে সরকার বাধা না দেয় সে জন্য তাঁরা দাবি জানিয়েছেন। মন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে তাঁদের জানিয়েছি, বিষয়টি পুলিশ কমিশনার দেখেন। তাঁর কাছে এ বিষয়ে লিখিত আবেদন করলে তিনিই সিদ্ধান্ত দেবেন। তবে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না ঘটলে তো কোনো অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।’

খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য প্যারল দেওয়ার বিষয়ে সরকারের কোনো ভাবনা আছে কি না জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা জেনেছি ও দেখেছি, উনি তো আগে দেশে থেকেই চিকিৎসা নিয়েছেন। কাজেই ওনাকে প্যারলে বিদেশে পাঠানোর কোনো প্রয়োজন নেই। তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেল কোডের বিধান অনুযায়ী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সঙ্গে পরামর্শ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কারাগারে খালেদা জিয়াকে দোতলায় রাখা হয়েছে, তাঁর শারীরিক অসুস্থতার কারণে কাউকে দোতলায় গিয়ে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘অনেকেই ওখানে (জেলখানায়) তাঁর সঙ্গে দেখা করতে যান। ওনার দলের লোক যান, আত্মীয়রা যান। তবে উনি তো সবার সঙ্গে দেখা করতে চান না। তাঁর সঙ্গে কারা কারা দেখা করতে চান সে তালিকা জেল কর্তৃপক্ষের কাছে চেয়েছেন খালেদা জিয়া। তালিকা অনুযায়ী তিনিই সিদ্ধান্ত নেন কার সঙ্গে দেখা করবেন আর কার সঙ্গে করবেন না।’

 

 


মন্তব্য