kalerkantho


শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করবেন হাসিনা ও মোদি

নিজস্ব প্রতিবেদক, কলকাতা   

১৯ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবন যৌথভাবে উদ্বোধন করবেন। গত সোমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিশ্বভারতীর সমাবর্তনে উপস্থিত থাকার সম্মতি জানিয়েছেন। একইভাবে কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসের কাছেও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরের সম্মতিপত্র পৌঁছেছে দুই দিন আগে।

বিশ্বভারতী ও কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাস সূত্র এ খবর নিশ্চিত করেছে। যদিও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

বিশ্বভারতীর উপাচার্য সবুজ কলি সেন জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী অর্থাৎ বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন। একইভাবে তিনি আশা প্রকাশ করেন, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর হাত দিয়েই শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে।

গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ভবনের চূড়ান্ত নির্মাণকাজ নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় শান্তিনিকেতনে। ওই বৈঠকে যোগ দিতে সোমবার সকালে সেখানে ১৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে যান বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। গতকাল সকালে উপাচার্য সুবজ কলি সেনের সঙ্গে বৈঠকে মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসের ডেপুটি হাইকমিশনার তৌফিক হাসান, মিয়া মহম্মদ মাইনুল কবীর, শেখ সফিউল ইমাম প্রমুখ কর্মকর্তা। এদিকে কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দুই দিন আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দপ্তর থেকে শান্তিনিকেতন সফরের বিষয়ে সম্মতি দেওয়া হয়। তবে এখনো সফরসূচি ঠিক করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য শান্তিনিকেতন সফর ঘিরে উপদূতাবাস এরই মধ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছে। সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর শান্তিনিকেতন থেকে ঢাকায় ফেরার পর আরো দুটি প্রতিনিধিদল শান্তিনিকেতন সফর করবে বলেও ওই কর্মকর্তা নিশ্চিত করেন।

শান্তিনিকেতনে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই বাংলাদেশ ভবন হস্তান্তর করার চেষ্টা করা হচ্ছে। ঢাকায় ফিরে বিষয়টি চূড়ান্ত করার কথাও শান্তিনিকেতনের স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

শান্তিনিকেতনের দক্ষিণ পল্লীতে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে বাংলাদেশ ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রায় সাড়ে ১১ হাজার বর্গফুটের দ্বিতল এই ভবন একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।



মন্তব্য