kalerkantho


বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে বক্তারা

খালেদাকে ছাড়া নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



খালেদাকে ছাড়া নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না

রাজশাহীর ঐতিহাসিক ভুবন মোহন পার্কে গতকাল বিএনপি রাজশাহী মহানগর আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য দেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ছাড়া আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি। এমনকি নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না বলে হুঁশিয়ার করেছেন দলটির নেতারা।

গতকাল রবিবার বিকেলে রাজশাহী মহানগরীর ভুবনমোহন পার্কে বিএনপির বিভাগীয় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও বতর্মান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের সাজার প্রতিবাদে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের। তবে মায়ের মৃত্যুর কারণে তিনি আসতে না পারায় প্রধান অতিথি করা হয় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মোশাররফ হোসেনকে।

মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আগামীতে নির্বাচন হতে হবে অংশগ্রহণমূলক। তাহলে বিএনপি সেই নির্বাচনে অংশ নেবে। তবে খালেদা জিয়াকে ছাড়া অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হতে পারে না। তাই খালেদা জিয়াকে ছাড়া এ দেশে কোনো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘বিএনপির মতো বড় একটি দলের সমাবেশ এই ছোট জায়গায় করা সম্ভব নয়। আপনারা ছোট জায়গা দিয়ে আমাদের সমাবেশ বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পুরো রাজশাহী আজ সমাবেশে পরিণত হয়েছে। এতেই বার্তা দেয় আগামীতে বিএনপিকে ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন সম্ভব নয়। দেশের জনগণ সেটি হতেও দেবে না।’ ড. মোশাররফ বলেন, ‘জনগণের ওপর শেখ হাসিনার কোনো আস্থা ও বিশ্বাস নেই। তাই সমাবেশে হাত উঁচিয়ে তিনি নৌকায় ভোট চান, আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হলে জনগণ ব্যালটের মাধ্যমেই শেখ হাসিনাকে সেই জবাব দেবে।’

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বরকতউল্লা বুলু, ব্যারিস্টার আমিনুল হক, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, জয়নুল আবদিন ফারুক, হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু প্রমুখ।

 

 



মন্তব্য