kalerkantho


গৌরীপুরে রবিদাস সম্প্রদায়ের বাড়িতে হামলা লুটপাট

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বাড়ি দখলচেষ্টায় বাধা দেওয়ায় ময়মনসিংহের গৌরীপুরে রবিদাস সম্প্রদায়ের লোকজনকে মারধর করে ঘরে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল সোমবার গভীর রাতে ওই হামলার পর লুটপাট চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং ২০-২৫ জনকে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করে গৌরীপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে।

মামলার বিবরণ ও স্থানীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, উপজেলার মইলাকান্দা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের রবিদাস সম্প্রদায়ের শতাধিক পরিবার বাস করে। সেখানে ১১৭ নম্বর দাগের প্রায় ১০ শতক জমিতে ঘর নির্মাণ করে বসবাস করে আসছে গ্রাম পুলিশ মহনলাল রবিদাসের ছেলে সুনিল রবিদাস (৩০)। তাঁর পরিবারের ছয় সদস্য।

গ্রাম পুলিশ মহনলাল রবিদাস অভিযোগ করেন, বেশ কয়েক দিন ধরে তাঁর ওই জমি খালি করে দেওয়ার জন্য চাপ দেয় পাশের টিকুরি গ্রামের বিল্লাল হোসেন, অপু মিয়া, মাহাবুর রহমান, রুবেল মিয়াসহ ২০-২৫ জনের একটি চক্র। অন্যথায় তাঁদের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। এই অবস্থায় গত রবিবার সকালে ওই চক্রটি বাড়িতে এসে দুই দিনের মধ্যে জমি খালি করে দিয়ে অন্যত্র যাওয়ার জন্য ফের চাপ দেয়। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে চলে যায় তারা।

পরে রবিবার রাত আনুমানিক ২টার দিকে অস্ত্রশস্ত্রসহ বাড়িতে ঢুকে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে বসতঘরের আসবাবপত্র নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। ওই সময় পরিবারের অন্যরা এগিয়ে এসে বাধা দিলে তাদের মারধর করা হয়।

সুনিল রবিদাসের স্ত্রী রিনা রবিদাস বলেন, বসতঘরে হামলার সময় কয়েকজন মুখোশ পরা ছিল। ওই সময় তাঁদের শিশুসন্তানের দিকে অস্ত্র তাক করে হামলাকারীরা এই বলে ভয় দেখায় যে এ ঘটনা নিয়ে থানা পুলিশে গেলে নির্বংশ করে দেওয়া হবে।

এলাকার লোকজন জানায়, রবিদাসের পরিবারের ওপর এর আগেও বেশ কয়েকবার হামলার ঘটনা ঘটেছে; কিন্তু কোনো বিচার পায়নি তারা।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য সামছুল আলম বলেন, ‘বাপ-দাদাদের আমল থেকে দেখছি ওই পরিবারটি এখানে বসবাস করছে। এক টুকরো জায়গার লোভে চিহ্নিত চক্রটি বারবার এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। এদের সঠিক বিচার হওয়া দরকার।’

মইলাকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান বলেন, ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে ওঠাবসা আছে, এমন লোকজনই এই জমির দখল নিতে চায়। তাদের আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে গৌরীপুর থানার ওসি দেলোয়ার আহমেদ বলেন, বিল্লাল, অপু, মাহাবুর ও রুবেল মিয়াকে অভিযুক্ত করে মামলা রেকর্ডভুক্ত করা হয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 

 



মন্তব্য