kalerkantho


বাসায় ঢুকে গৃহবধূকে ছুরি মেরে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানীর পশ্চিম মানিকদি এলাকায় বাসায় ঢুকে রাশিদা বেগম (২৮) নামের এক গৃহবধূকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ননদের ছেলে শিপলু তাকে হত্যা করেছে বলে সন্দেহ স্বজনদের। ঘটনার পর থেকে শিপলু পলাতক।

ক্যান্টনমেন্ট থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, কী কারণে ওই গৃহবধূকে হত্যা করা হয়—তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। স্বজনদের এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অভিযুক্ত শিপলুকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

রাশিদার জা নাজমা বেগম জানান, পশ্চিম মানিকদির ২৯২ নম্বর বাড়ির পঞ্চম তলায় স্বামী হোসেন আলী ও দুই সন্তান নিয়ে থাকতেন রাশিদা। একই ভবনের তৃতীয় তলায় থাকেন নাজমা। এটি দুই ভাইয়ের নিজেদের বাড়ি। নাজমা বেগম বলেন, গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে নাজমা আক্তার নামে তাঁদের এক ননদের ছেলে শিপলু ওই বাড়িতে যায়। সে মামি নাজমা বেগমের কাছে জানতে চায়, মামা হোসেন আলী কোন তলায় থাকেন। এরপর পঞ্চম তলায় চলে যায় শিপলু। এর কিছু সময় পর হঠাৎ নারীকণ্ঠের চিৎকার শুনতে পান নাজমা বেগম। দ্রুত তিনি পঞ্চম তলায় গিয়ে দেখতে পান, রাশিদা রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছেন। তাঁর পেটের বাঁ পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন। তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় ইসলামিয়া হাসপাতালে নেওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎপর পর রাশিদাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে বিকেল ৪টার দিকে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। নাজমা বেগম বলেন, ‘আমার মনে হয় ওনাকে (রাশিদা) ছুুরিকাঘাত করে পালিয়ে গেছে শিপলু। তবে কেন তাকে ছুরিকাঘাত করা হয় তা বুঝতে পারছি না।’

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, নিহতের স্বজনরা হত্যার কারণ সম্পর্কে কোনো ধারণা দিতে পারেননি। ঘুরে-ফিরে তারা শিপলু নামের নিহতের এক ভাগ্নের কথা বলছে। পারিবারিক বিরোধ থেকেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা সবার।



মন্তব্য