kalerkantho


আট দিনের জাতীয় পথনাট্যোৎসব হলো শুরু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘প্রগতির যাত্রাপথে মশাল জ্বালাও, ভাষা-কৃষ্টির শক্তি নিয়ে বিশ্ব কাঁপাও’ স্লোগানে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গতকাল বুধবার শুরু হয়েছে আট দিনব্যাপী জাতীয় পথনাট্যোৎসব-২০১৮। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় শুরু হবে এই উৎসব। এই নাট্যোৎসবে ৩৫টি সংগঠন নাটক পরিবেশন করবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে গতকাল বিকেলে বেলুন উড়িয়ে ও ছবি এঁকে উৎসবের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চিত্রশিল্পী সমরজিৎ রায় চৌধুরী।

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতা ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সহযোগিতায় এই নাট্যোৎসবের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আয়োজক সংগঠনের সভাপতি লিয়াকত আলী লাকির সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক আকতারুজ্জামান। আরো বক্তব্য দেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ঝুনা চৌধুরী, নাট্যজন মান্নান হীরা, রোকেয়া রফিক বেবী প্রমুখ।

শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন, ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয় উদ্বোধনী দিনের কার্যক্রম। পরে শিল্পকলা একাডেমির পরিবেশনায় ও সোম গিরির নির্দেশনায় নৃত্যনাট্য ‘উড়ন্ত পাখি’ পরিবেশিত হয়। সবশেষে ড. মোহাম্মদ বারীর নির্দেশনায় ও থিয়েটার আর্ট ইউনিটের নাটক ‘জনম দুখী মা’ পরিবেশনার মাধ্যমে শেষ হয় প্রথম দিনের অনুষ্ঠান।

সমরজিৎ রায় চৌধুরী বলেন, ‘নাটক আমার অনেক পছন্দের বিষয়। এই উৎসবে আসতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত বোধ করছি। নাটকের মধ্য দিয়ে আমাদের দেশের অনেক আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণ হয়। বাংলাদেশের নাটকের অগ্রযাত্রা সামনের দিকে এগিয়ে যাক এই কামনা করি।’ রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘আমাদের দেশে মিশেল বাংলা ভাষার ব্যবহার হচ্ছে। এ অবস্থায় ভাষার মাসের শুরুতে নাটকের মাধ্যমে প্রমীত বাংলা ভাষার চর্চা বাড়ুক। পথনাটকের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটে। একসময় বাংলাদেশে অনেক পথনাটক হতো। বর্তমানে তা কমে গেছে।


মন্তব্য