kalerkantho


প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ফেসবুক বন্ধ চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ফেসবুক বন্ধ চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়

প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সময় সীমিত সময়ের জন্য ফেসবুক-টুইটারসহ সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বন্ধ রাখতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ জন্য ফেসবুক পরিচালনাকারীদের কাছে অনুরোধও করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এসব তথ্য জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘ফেসবুক যারা পরিচালনা করে তাদের কাছে একটা লিমিটেড টাইমের জন্য ফেসবুক বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি আমরা। এখন দেখা যাক এটা আলাপ করে কিভাবে করা যায়। ফেসবুক একেবারে বন্ধ তা নয়, একটা লিমিটেড টাইমের জন্য আমরা করব। এ ব্যাপারে আমরা বিটিআরসিটি ও আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলব। প্রশ্ন ফাঁসকারীরা প্রযুক্তিগত যে সুযোগগুলো নেয়, সেটা বন্ধ করতে চিন্তা চলছে। এটা লিমিটেড টাইমের জন্য, এতে কেউ কোনো ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। আমরা দুই-এক ঘণ্টার জন্য তা করতে চাই।’

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলবে ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। সকালের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। আর বিকেলের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার আগের রাতে ও সকালে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে প্রশ্ন ফাঁস হচ্ছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরো বলেন, ‘সর্বশেষ দুই-তিন বছরের অ্যানালিসিস করে গবেষকরা দেখেছেন, ওই ভোরে, সকালে এমন হয়। অনেক জায়গায় দূরের একটা গ্রামাঞ্চলে, হাওর অঞ্চলে, পাহাড়ি অঞ্চলে আমাদের সেন্টার আছে এবং তারা ভোরে (প্রশ্ন) নিয়ে যায়। ভোরে যেটা দেয় (ফেসবুকে প্রশ্ন), তার মধ্যে সত্যতা খুঁজে পাওয়া যায়।’

এসএসসি পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের অবশ্যই পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে জানিয়ে নাহিদ বলেন, ‘আগে আধাঘণ্টা পরে এলেও কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া হতো, আমরা এবার সেটা গণ্য করব না। যেহেতু প্রশ্ন দেওয়া হয় ১০টার সময়। এত দিন এর আধাঘণ্টা পরেও পরীক্ষার হলে ঢুকতে পারত। আমরা সকল পরীক্ষার্থীকে বলে দিচ্ছি যে আধাঘণ্টা আগে অর্থাৎ সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হলে ৯টা ৩০ মিনিটের আগে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করে সিটে বসতে হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রসচিব প্রশ্নের খাম খুলবেন, এর আগে তিনি প্রশ্নের প্যাকেট খুলতে পারবেন না। সাড়ে ৯টার আগে কেউ প্রশ্নের প্যাকেট খুললে অপরাধী হিসেবে বিবেচনা করা হবে। মামলা হবে, জেলে যাবেন, চাকরি যাবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এবারের এসএসসি পরীক্ষা শুরুর তিন দিন আগ থেকে সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা হবে। কেন্দ্রসচিব একটি সাধারণ ফোন সঙ্গে রাখতে পারবেন। অন্য কেউ সঙ্গে কোনো ধরনের মোবাইল ফোন রাখতে পারবেন না।’

শিক্ষক ও অভিভাবকদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘যাঁরা শিক্ষকতা পেশায় এসে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি করছেন তাঁরা দয়া করে (চাকরি) ছেড়ে যাবেন। আর অভিভাবকরা যেন উপলব্ধি করেন, পরীক্ষায় পাস করানোর জন্য অসৎ পথ অনুসরণ করে নিজের সন্তানকে নৈতিকভাবে তিনি ভুল শিক্ষা দিচ্ছেন।’

ফেসবুক বন্ধের পক্ষে নই : মোস্তাফা জব্বার

এদিকে প্রযুক্তি সচল রেখেই প্রযুক্তির অপব্যবহার মোকাবেলা করতে হয় বলে মন্তব্য করেছেন টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। গতকাল সন্ধ্যায় তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক বন্ধের পক্ষে আমি নই।’

এসএসসি পরীক্ষার সময় ফেসবুক বন্ধ রাখার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আমাকে এখনো কেউ অনুরোধ করেননি। অনুরোধ করলে অবস্থান জানাব। এর আগেও ফেসবুক বন্ধ করা হয়েছিল। তখন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় তা চালুর উদ্যোগ নেন। ফলে আবারও তা বন্ধ করার কোনো কারণ দেখি না। তবে প্রধানমন্ত্রী ও তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা যে সিদ্ধান্ত দেবেন, সে অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মোস্তাফা জব্বার আরো বলেন, ‘প্রযুক্তি দিয়েই (সচল রেখে) প্রযুক্তির মোকাবেলা করতে হবে। প্রযুক্তি বন্ধ করে দেওয়া কোনো সমাধান হতে পারে না।’



মন্তব্য