kalerkantho


সালিসে ডেকে মারধর সাদা কাগজে সই!

ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



গ্রাম পুলিশ দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে ধরে এনে সালিসের নামে বৃদ্ধকে মারধর ও সাদা কাগজে স্বাক্ষর গ্রহণ করার অভিযোগ উঠেছে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে গতকাল রবিবার মামলা হয়েছে।

ইউনিয়নের পোটরা গ্রামের গণেশ চন্দ্র মণ্ডলের ছেলে সুদাংশু মণ্ডল রাজবাড়ী ১ নম্বর আমলি আদালতে এ মামলা করেন। বিচারক মামলাটি তদন্ত করে বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জকে ২০ মার্চের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছেন।

আসামিরা হলেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জঙ্গল গ্রামের নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, একই গ্রামের কৃষ্ণ বিশ্বাস, পোটরা (আগপোটরা) গ্রামের স্বপন শিকদার, বহলাকুণ্ডু গ্রামের অর্জুন প্রামাণিকসহ অজ্ঞাতপরিচয় পাঁচ-সাতজন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ জানুয়ারি সকালে ইউপি চেয়ারম্যান বাদীর দাদা বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র মণ্ডলকে (৭০) জীবিত অথবা মৃত ধরে ইউনিয়ন পরিষদের আনার হুকুম দেন। গ্রাম পুলিশ সদস্য অর্জুন প্রামাণিক ও কৃষ্ণ বিশ্বাসসহ অজ্ঞাতপরিচয় আসামিরা রাসখোলা বাজার থেকে রমেশকে ধরে নিয়ে যায়। সুদাংশু মণ্ডল খবর পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে দেখেন আসামিরা তাঁর দাদাকে মারধর করছে। বাধা দেওয়ার পর বাদীকেও মারধর করা হয়। বেশ কয়েক ঘণ্টা অটকে রাখার পর বৃদ্ধ রমেশের থেকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। এ সমসয় হুমকি দেওয়া হয় ‘মামলা-মোকদ্দমা করলে জানে শেষ করে ফেলব, ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে দেব।’ মারধরের শিকার হয়ে বাড়িতে যাওয়ার পর রমেশ চন্দ্র মণ্ডল অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৭ জানুয়ারি বালিয়াকান্দি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় যোগাযোগ করা হলে নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সালিসের রায় অনুযায়ী লিখিত রাখা হয়েছে। একটি সঠিক বিচারকে কলঙ্কিত করতে এবং তাঁকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করতেই তাঁর বিরুদ্ধে ওই মামলা করা হয়েছে।’ অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। বাদীপক্ষ বলছে, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্রনাথ তাদের বিরুদ্ধে লেগেছেন।



মন্তব্য