kalerkantho


বসুন্ধরা ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়ার শীতবস্ত্র বিতরণ

‘যে কয়দিন বাঁচি আছি কম্বলটা গায়োত দিম’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘যে কয়দিন বাঁচি আছি কম্বলটা গায়োত দিম’

ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের উদ্যোগে গতকাল কুড়িগ্রামে চিলমারীর রানীগঞ্জ এবং উলিপুরের হাতিয়ায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

মানিকগঞ্জ, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারীতে দরিদ্রদের মধ্যে গতকাল রবিবার কম্বল বিতরণ করেছে ‘বসুন্ধরা গ্রুপ’ এবং এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ‘ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড’। এর ভেতর মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে কম্বল বিতরণ করে বসুন্ধরা গ্রুপ। কুড়িগ্রামের চিলমারী ও উলিপুরে ৬০০ শীতার্তের হাতে কম্বল তুলে দেয় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। এ ছাড়া মিডিয়া গ্রুপের পক্ষ থেকে ২০০ কম্বল বিতরণ করা হয় নীলফামারীর ডিমলায়।

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বসুন্ধরা গ্রুপের চলমান শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচির আওতায় গতকাল দৌলতপুর উপজেলার কলিয়া, ধামশর ও চকমিরপুর ইউনিয়নে কম্বল বিতরণ করা হয়। এ নিয়ে মানিকগঞ্জে বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে তিন হাজার দুস্থ পরিবারকে কম্বল দেওয়া হলো।

গতকাল দুপুরে দৌলতপুর প্রমোদা সুন্দরী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বসুন্ধরা গ্রুপ চেয়ারম্যানের প্রধান উপদেষ্টা মাহবুব মোর্শেদ হাসান রুনু। অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়, মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম মহিউদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক তায়েবুর রহমান টিপু ও আমিনুর ইসলাম মট্টু উপস্থিত ছিলেন।

মাহবুব মোর্শেদ হাসান রুনু বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শীতার্তদের মধ্যে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিতে বিত্তবানদের আহ্বান জানিয়েছেন। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। কেননা বসুন্ধরা গ্রুপ কাজ করে দেশ ও মানুষের কল্যাণে।’

নাঈমুর রহমান দুর্জয় বসুন্ধরা গ্রুপ ও এর চেয়াম্যানকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘এই এলাকায় বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতা এবারই প্রথম নয়। সব সময় সঠিক সময়ে তারা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়।’

জেলা পরিষদের চেয়াম্যান গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘কেবল বিত্তবান হলেই হয় না, গরিব-দুঃখীদের সহযোগিতা করার মানসিকতা থাকতে হয়। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও তাঁর পরিবারের সেই মানসিকতা আছে।’

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি জানান, চিলমারীর রানীগঞ্জ ও উলিপুরের হাতিয়া ইউনিয়নের ৬০০ শীতার্তের মধ্যে কম্বল বিতরণ করে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। কম্বল হাতে পেয়ে হাতিয়া মেলা গ্রামের ৮০ বছরের বৃদ্ধা সুরুতজান বলেন, ‘যে জার পড়ছে। জীবনটা কোনবালা বা যায়। তোমার কম্বলটা পায়া মোর খুব উপকার হইল বাহে। যে কয়দিন বাঁচি আছি, কম্বলটা গায়োত দিম।’

কম্বল পেয়ে তাঁর মতো খুশি একই গ্রামের খুকি বেগম, অনন্তপুর গ্রামের হাছেন আলী, জয়নালসহ বয়স্ক মানুষ। ৮৫ বছর বয়সী হাছেন আলী বলেন, ‘এবার যে ঠাণ্ডা পড়ছে, জীবনে কোনো দিন এদোন ঠাণ্ডা দেখি নাই। আল্লায় বাঁচে রাখছে সেটা বিরাট ব্যাপার। তোমার কম্বল পায়া হামার খুব উপকার হইল। হামরা মন ভরে তোমার জন্য দোয়া করমো।’

কম্বল বিতরণের সময় জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান বাবু, কালের কণ্ঠ’র পাঠক সংগঠন শুভসংঘের স্থানীয় সভাপতি খন্দকার খায়রুল আনম, হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মাস্টার, রানীগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল ইসলাম, রানীগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আয়নাল হক, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম জাহাঙ্গীর, উলিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ভুট্টু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নীলফামারী প্রতিনিধি জানান, ডিমলা উপজেলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নের চাপানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে ২০০ শীতার্তের মধ্যে কম্বল বিতরণ করে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। কম্বল পেয়ে দক্ষিণ ঝুনাগাছ চাপানী গ্রামের বৃদ্ধ বাইল্লা মামুদ বলেন, ‘আইতের ঠাণ্ডার কাঁপুনিতে মোর নিন (ঘুম) ধরে না, এইখান কম্বল গাওত দিয়া আজি একেনা নিন পারিম বাহে। এইমতোন ঠাণ্ডাত মোক কম্বল দিয়া তোমরা খুব উপকার করিলেন।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার। অন্যদের মধ্যে শুভসংঘের জেলা সভাপতি অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন, খালিশা চাপানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান, চাপানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস্কেন্দার মির্জা, সহকারী শিক্ষক বিলকিস জাহান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার বলেন, ‘দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করছে বসুন্ধরা গ্রুপ। শীতার্তদের মধ্যে কম্বল বিতরণের জন্য বসুন্ধরা গ্রুপ ও তাদের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’



মন্তব্য