kalerkantho


চট্টগ্রামে গণপূর্তমন্ত্রী

আমৃত্যু গণমানুষের রাজনীতি করেছেন সাদেক চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে আমৃত্যু গণমানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন জননেতা সাদেক চৌধুরী। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড-পরবর্তী দুঃসময়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে তাঁর যে ভূমিকা ছিল তা অবিস্মরণীয়। বিত্তশালী না হয়েও সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিকে ধারণ করে তিনি মানুষের হৃদয় জয় করেছিলেন।

গতকাল শনিবার বিকেলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি এম সাদেক চৌধুরীর ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরের দোস্ত বিল্ডিংয়ে দলীয় কার্যালয়ে এ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি আরো বলেন, ‘তিনি (এম সাদেক চৌধুরী) দু-দুবার রাঙ্গুনিয়া আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দোর্দণ্ড প্রতাপশালী কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করে বহুমুখী ষড়যন্ত্রের কারণে স্বল্পভোটের ব্যবধানে হেরেছিলেন। তবুও তিনি রাঙ্গুনিয়ার মাটি ও মানুষের কল্যাণ এবং সার্বিক উন্নয়নে কাজ করেছিলেন। দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করাই ছিল তাঁর রাজনীতির ব্রত। তাঁর মতো দেশপ্রেমিক, সৎ ও নিবেদিতপ্রাণ বিরল রাজনীতিকের মৃত্যুতে দেশ ও সংগঠনের যে ক্ষতি সাধিত হয়েছে তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। তিনি আদর্শিক রাজনৈতিক কর্মীদের প্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন অনন্তকাল।’

সংগঠনের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে স্মরণসভায় প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম। সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাউজান পৌরসভার মেয়র দেবাশীষ পালিতের সঞ্চালনায় আলোচনায় আরো অংশ নেন সহসভাপতি অধ্যাপক মো. মঈনুদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন, দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবলু, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার প্রমুখ।

এর আগে সভার শুরুতে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।



মন্তব্য