kalerkantho


সাবেক সেনা কর্মকর্তার দাবি

শান্তিতেই আছে মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা!

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা শান্তিতে বসবাস করছে বলে দাবি করেছেন দেশটির সাবেক চার তারকা জেনারেল, সাবেক সেনাপ্রধান ও বর্তমানে পার্লামেন্ট সদস্য লা তে উইন। সিঙ্গাপুরভিত্তিক চ্যানেল নিউজ এশিয়াকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, রোহিঙ্গাদের ৬০ শতাংশ এখনো মিয়ানমারে আছে। তাদের মিয়ানমারের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা ঘৃণা করে না। নিউ ইয়র্কভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, উইন ১৯৮৮ সালে তৎকালীন রেঙ্গুন সামরিক কমান্ডের অধিনায়ক থাকার সময় সামরিক বাহিনী গণতন্ত্রপন্থীদের ওপর রক্তাক্ত অভিযান চালিয়েছিল।

মিয়ানমার বাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণ, ‘জাতিগত নিধনযজ্ঞ’ ও ‘গণহত্যা’ চালানোর অভিযোগও নাকচ করেন উইন। তিনি বলেন, এ ধরনের অভিযোগ আনুষ্ঠানিকভাবে পাওয়া গেলে এবং তার সত্যতা মিললে মিয়ানমার সামরিক বাহিনী ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত। তিনি বলেন, ‘সার্বিকভাবে আমরা মুসলমানবিরোধী নই। আর একসঙ্গে শান্তিতে বসবাস করছি।’ রোহিঙ্গাদের ‘বেঙ্গলি’ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বেঙ্গলিরাও শান্তিতে বসবাস করতে চায়। তবে মিয়ানমারের সমাজে বড় অংশই মনে করে, ১১ লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে পাঁচ লাখ ৪০ হাজারই বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে গেছে বার্মিজদের জমি দখল করতে।

এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নাগরিকত্বের অধিকার, ভূমি ফিরে পাওয়া এবং হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাটের বিচারসহ কয়েক দফা শর্ত নিয়ে সামনে আসার পরিকল্পনা করছেন বাংলাদেশের কুতুপালং ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গা নেতারা। ছয়জন রোহিঙ্গা নেতা বার্মিজ ভাষায় হাতে লেখা একটি স্মারকলিপির খসড়াও তৈরি করেছেন। নেতারা বলছেন, তাঁরা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের ৪০টি গ্রামের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তাঁদের স্মারকলিপি চূড়ান্ত হলেই তা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিদের কাছে তা তুলে ধরা হবে। খসড়ায় বলা হয়েছে, মিয়ানমার সরকার যতক্ষণ না এসব দাবি পূরণ করছে, ততক্ষণ আশ্রয়শিবির থেকে কেনো রোহিঙ্গা ফিরে যাবে না।



মন্তব্য