kalerkantho


আরেক বিপ্লবী প্রীতিলতার স্মৃতির প্রতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শ্রদ্ধা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



আরেক বিপ্লবী প্রীতিলতার স্মৃতির প্রতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শ্রদ্ধা

চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে তৎকালীন ইউরোপিয়ান ক্লাবের সামনে প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের আত্মাহুতির স্থানটিতে শ্রদ্ধা জানান ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ছবি : কালের কণ্ঠ

ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অগ্নিপুরুষ বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্য সেনের জন্মভিটা ঘুরে আসার পরের দিন গতকাল বুধবার আরেক বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। তৎকালীন ব্রিটিশ সেনাদের হাতে ধরা পড়ার আগে আত্মাহুতি দেওয়া প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম ত্যাগ করেন তিনি। চট্টগ্রাম সফরের দ্বিতীয় দিনে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের স্মৃতিবিজড়িত অস্ত্রাগার এবং তৎকালীন ইউরোপিয়ান ক্লাব ঘুরে দেখেছেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি।

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের চট্টগ্রাম সফর ঘিরে মানুষের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ছিল। গতকাল তাঁর গাড়ির বহর যেসব সড়ক দিয়ে গেছে সেখানকার আশপাশে প্রচুর লোক সমাগম ছিল। তবে এ সময় কয়েকটি সড়কে যানবাহন চলাচলে কড়াকড়ির কারণে সাধারণ মানুষের কিছুটা দুর্ভোগও ছিল। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া নজরদারি ছিল সর্বত্র।

গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় নগরের র‌্যাডিসন ব্লু বে ভিউ হোটেল থেকে দামপাড়া পুলিশ লাইনে যান ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায় এবং চট্টগ্রাম নগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সেখানে নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার দেবদূত মজুমদার ব্রিটিশ আমলের দামপাড়া পুলিশ লাইনের অস্ত্রাগারের ইতিহাস প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সামনে তুলে ধরেন। সেখানে রাখা একটি স্মারক বইতেও স্বাক্ষর করেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি।

জানা যায়, ১৯৩০ সালে চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহের সর্বাধিনায়ক মাস্টারদা সূর্য সেনের নেতৃত্বে বিপ্লবীরা অস্ত্র লুণ্ঠনের উদ্দেশ্যে আক্রমণ করে। অস্ত্রাগার দখলের পর ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সব অহংকার চূর্ণ করে চার দিন স্বাধীন ছিল চট্টগ্রাম।

গতকাল ওই স্মৃতিধন্য অস্ত্রাগারটি পরিদর্শন শেষে সকাল সোয়া ১১টার দিকে নগরের পাহাড়তলীতে ইউরোপিয়ান ক্লাবে আসেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। এ সময় তাঁকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান রেলপথ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও চট্টগ্রামের রাউজানের আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্য এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী। ক্লাবের প্রবেশপথে নতুন স্থাপিত ‘ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণ’ শীর্ষক স্মৃতিফলক পড়ে দেখেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি।

জানা যায়, ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর মাস্টারদা সূর্য সেনের  নির্দেশে প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের নেতৃত্বে তখনকার ব্রিটিশের ইউরোপিয়ান ক্লাবে আক্রমণ চালায় বিপ্লবীরা। এই ক্লাবের প্রবেশপথে তখন লেখা ছিল ‘কুকুর ও ভারতীয়দের প্রবেশ নিষিদ্ধ’। ক্লাব আক্রমণ শেষে নিজের বাহিনীকে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে গুলিবিদ্ধ বীরকন্যা প্রীতিলতা পটাসিয়াম সায়ানাইড খেয়ে আত্মাহুতি দেন।

গতকাল প্রণব মুখোপাধ্যায় ক্লাবে প্রবেশ করে সেখানে কাঠের মেঝের নিচে তৎকালীন ইংরেজদের অস্ত্র রাখার স্থান এবং ক্লাবের ভেতর লাগানো প্রীতিলতার ছবিসংবলিত ব্যানার পড়ে দেখেন। এরপর তিনি অদূরে বিপ্লবী প্রীতিলতা ভাস্কর্য চত্বরে যান। সেখানে প্রীতিলতার ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।

এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই ইউরোপিয়ান ক্লাব সংরক্ষণ করা হবে হেরিটেজ হিসেবে, যাতে যাঁরাই এখানে আসেন তাঁরা ইতিহাস জানতে পারেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘এটাকে সাবেক ইউরোপিয়ান ক্লাব হিসেবে রাখা হবে, এখানে কোনো অফিস থাকবে না। পাশাপাশি রাউজানের চুয়েট পর্যন্ত যে রেললাইন হবে, সেখানে নোয়াপাড়া স্টেশনটি মাস্টারদা সূর্য সেনের নামে নামকরণ করা হবে।’

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার দেবদূত মজুমদার সাংবাদিকদের বলেন, ‘দামপাড়া পুলিশ লাইনে দুটি অস্ত্রাগারের মধ্যে একটিতে ব্রিটিশ পুলিশের অস্ত্র এবং আরেকটিতে গোলাবারুদ রাখা হতো। ১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল অস্ত্রাগারটি বিপ্লবীরা দখল করলেও গোলাবারুদের সন্ধান তাঁরা পাননি। এই ঐতিহাসিক স্থাপনা নিয়ে যে ইতিহাস, সেটি সিএমপির পক্ষ থেকে আমি ভারতের মহামান্য সাবেক রাষ্ট্রপতিকে জানিয়েছি।’

বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন শেষে দুপুর ১২টার দিকে অতিথিকে নিয়ে গাড়িবহর চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা দেয়। পরে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে চট্টগ্রাম ছাড়েন ভারতের ইতিহাসে একমাত্র বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। সঙ্গে ছিলেন মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়ও।



মন্তব্য