kalerkantho


মহিউদ্দিন চৌধুরীর শোকসভায় ওবায়দুল কাদের

‘চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগে ঐক্য চান দলের সভাপতি’

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অবর্তমানে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ নেতাদের ঐক্য চেয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল রবিবার বিকেলে নগরের লালদীঘি মাঠে মহিউদ্দিন চৌধুরীর শোকসভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে এ শোকসভার আয়োজন করে আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা।

ওই শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতার একপর্যায়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, “আজকে সকালে আমি যখন নেত্রীকে (প্রধানমন্ত্রী) মেসেজ দিয়েছি যে আমরা আজ চট্টগ্রামের বীর মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণসভায় এসেছি। তিনি আমাকে বলেছিলেন, ‘শুধু একটা কথা বলবে—মহিউদ্দিন চৌধুরীর অবর্তমানে আজকের এ সময়ে আমি চট্টগ্রামের নেতাকর্মীদের মধ্যে ঐক্য চাই।’”

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নেত্রী ঐক্য চান। মহিউদ্দিন চৌধুরীর আত্মার প্রতি যদি আমরা শ্রদ্ধা নিবেদন করতে চাই তাহলে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। দুঃসময়ে, দুর্দিনে, সংকটে মহিউদ্দিন চৌধুরী যেমন চট্টগ্রামবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন আজকে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনার দুর্ভেদ্য ঘাঁটি এই চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ অগ্রযাত্রা প্রত্যাশা করেছেন নেত্রী।’

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আপনারা কি নেত্রীর এ আশা পূর্ণ করবেন? আপনারা কি ঐক্যবদ্ধ থাকবেন? আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে, চট্টগ্রামে কোনো শক্তি আওয়ামী লীগের বিজয় ঠেকাতে পারবে না। আপনারা ঐক্যবদ্ধ হোন। চট্টগ্রামকে আবারও সংগ্রাম, আন্দোলন আর মুক্তিযুদ্ধের গণতন্ত্রের ঐক্যবদ্ধ দুর্ভেদ্য ঘাঁটিতে পরিণত করুন। আপনাদের কাছে তাঁর (মহিউদ্দিন) আত্মা এটাই আহ্বান জানাচ্ছে।’

মহিউদ্দিন চৌধুরীর শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কেন যেন মনে হয় একটা শূন্যতা আচ্ছন্ন করে রেখেছে আমাদের। এই শূন্যতা কবে পূরণ হবে আমি জানি না। মহিউদ্দিনের মতো সৎ হন। মহিউদ্দিনের মতো সৎ-সাহসী নেতার দরকার আছে চট্টগ্রামে। মহিউদ্দিন চৌধুরীর মতো সততার ও সাহসের আদর্শে এগিয়ে যাবেন। শুধু স্লোগান দিয়ে হবে না; কাজ দিয়ে, আদর্শ দিয়ে মানুষের মন জয় করতে হবে। তাঁর সাফল্যের কেমিস্ট্রি ছিল মানুষের কাছে থাকা, মাটির কাছে থাকা। নেতাকর্মীরা মানুষের কাছে ও মাটির কাছে থাকতে হবে। আজকে বিশাল নজিরবিহীন উন্নয়ন। এর সঙ্গে নজিরবিহীন ভালো আচরণ আশা করি।’

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ঘরের মধ্যে ঘর করবেন, অনেক হয়েছে। এনাফ ইজ এনাফ। মশারির মধ্যে মশারি খাটাবেন না। যে নেতা জনতা মানে না ওই নেতার দরকার নেই।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রেসিডিয়াম সদস্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘মহিউদ্দিন চৌধুরীকে যদি সত্যিকারের শ্রদ্ধা জানাতে হয়, তাহলে আসুন আগামী নির্বাচনে বৃহত্তর চট্টগ্রামের ২২টি আসনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করে শেখ হাসিনাকে উপহার দিই।’

সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘আমার বাবা বঙ্গবন্ধু এবং শেখ হাসিনার প্রশ্নে কোনো দিন আপস করেননি। আদর্শের প্রতি অবিচল আস্থা রেখে দলীয় নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্যই ছিল তাঁর রাজনৈতিক শিক্ষা। আমরা যারা তাঁর উত্তরসূরি, আমাদের তাঁর দেখানো রাজনৈতিক পথেই এগিয়ে যেতে হবে।’

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং দক্ষিণ জেলার সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোকসভায় আরো বক্তব্য দেন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সংসদ সদস্য ডা. আফছারুল আমীন, এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, দিদারুল আলম ও ওয়াসিকা আয়শা খান প্রমুখ।



মন্তব্য