kalerkantho


বিএনপির প্রতিক্রিয়ার জবাবে তথ্যমন্ত্রী

আগামী নির্বাচন নিয়ে কোনো সংকট নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সরকারের চার বছর পূর্তিতে গত ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণের পর বিএনপি ঢালাও প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে উল্লেখ করে এ বিষয়ে নিজের বক্তব্য তুলে ধরেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন নিয়ে দেশে কোনো সংকট নেই। গতকাল রবিবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সামনে তিনি তাঁর বক্তব্য তুলে ধরেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি বলেছে, দেশে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে  স্পষ্টতা নেই, সংকট আছে, কোনো দিকনির্দেশনা নেই, সমাধানে সংলাপ প্রয়োজন। বিএনপির ভাষায় দ্রব্যমূল্য নাগালের বাইরে, মেগা প্রকল্পগুলোতে ডাকাতি হচ্ছে আর উন্নয়ন হচ্ছে পরিসংখ্যানের তেলেসমাতি। আমি প্রতিটি বিষয়ের জবাব দেব। প্রথমেই বলি দেশে রাজনৈতিক, সাংবিধানিক বা নির্বাচন নিয়ে কোনো সংকট নেই। গণতন্ত্র সংকোচনে সাংবিধানিক আইনগত কোনো পদক্ষেপ নেই। তবে বিএনপি-জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতায় জঙ্গি-সন্ত্রাস মাথা চাড়া দিতে চায়, আগুন-সন্ত্রাসের দায় তারা অস্বীকার করার চেষ্টা করে। ৯৩ দিনের আগুন-সন্ত্রাসে তাদের নেতাকর্মীরা হাতেনাতে গ্রেপ্তারের সাক্ষী দেশবাসী। জঙ্গিবাদী-সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে বিএনপি যুদ্ধাপরাধ, ২১ আগস্টসহ বড় বড় হত্যাকাণ্ডের বিচার বন্ধ করার যে অপতৎপরতায় লিপ্ত, তা গণতান্ত্রিক রাজনীতির জন্য হুমকি। এই হুমকি মোকাবেলার জন্যই জাতীয় ঐকমত্য প্রয়োজন।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সংবিধানে কোনো অস্পষ্টতা নেই। নির্বাচনকালীন সরকার, কমিশন এবং তাদের এখতিয়ার সব কিছু স্পষ্ট (তথ্যমন্ত্রী এ সময় সংবিধানের ৫৬ অনুচ্ছেদে বর্ণিত নির্বাচনকালীন সরকারের সুস্পষ্ট নির্দেশনা পাঠ করে শোনান)। ইনু বলেন, খালেদা জিয়া বা বিএনপি গত ৯ বছরে নির্বাচন নিয়ে নতুন কোনো সাংবিধানিক প্রস্তাব দেয়নি। কেবল আগামী একটি নির্বাচন নিয়ে আলোচনার প্রস্তাব আসলে কালক্ষেপণের অপকৌশল। নির্বাচন বিষয়ে সব কিছু স্পষ্ট থাকার পরও সহায়ক সরকারের প্রস্তাব আসলে নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র এবং নির্বাচনে না আসার অছিলা তৈরির অপপ্রয়াস। বিএনপি এখনো নির্বাচন বানচাল করে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করার পুরনো ষড়যন্ত্রের রাজনীতিতে আছে।



মন্তব্য