kalerkantho


ঘটনাস্থল নান্দাইল

নারীর মস্তক পাওয়া যায়নি, এবার পুকুরে আরেকজনের লাশ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



অজ্ঞাতপরিচয় নারীর মস্তকবিহীন লাশ পাওয়ার পরদিনই ময়মনসিংহ নান্দাইলের একটি পুকুরে মিলেছে অজ্ঞাতপরিচয় পঞ্চাষোর্ধ্ব ব্যক্তির লাশ। গতকাল রবিবার পর্যন্ত নিহতদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এমনকি এ দুটি হত্যার কারণ ও খুনিদের ব্যাপারে পুলিশ রয়েছে পুরোপুরি অন্ধকারে। ময়নাতদন্তের জন্য দুটি লাশ গতকাল পাঠানো হয়েছে কিশোরগঞ্জ আধুনিক হাসপাতাল মর্গে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের নান্দাইল চণ্ডীপাশা ইউনিয়নের অরণ্যপাশা এলাকা থেকে গতকাল সকালে উদ্ধার হয়েছে পঞ্চাষোর্ধ্ব এক ব্যক্তির লাশ। নান্দাইল চৌরাস্তা হাইওয়ে থানা থেকে কিছুটা দূরে একটি পুকুরে ভাসছিল লাশ। তা দেখে স্থানীয়রা খবর দিলে নান্দাইল থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

নান্দাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোখলেছুর রহমান জানান, পরিচয় শনাক্তের জন্য পানি থেকে লাশ তুলে সড়কের পাশে কয়েক ঘণ্টা রাখা হয়েছিল। তাতে লাভ হয়নি। আশপাশের মানুষ নিহতের পরিচয় সম্পর্কে ধারণা দিতে পারেনি। নিহত ব্যক্তির মাথার সামনে ও দুই পায়ে জখমের চিহ্ন রয়েছে।

এদিকে শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার রাজগাতি ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে পাওয়া যায় এক নারীর মস্তকবিহীন লাশ। বেদায়কুড়ি বিলের নির্জন স্থানে বিবস্ত্র অবস্থায় পড়ে ছিল লাশটি। স্থানীয় ইউপি সদস্য খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত মস্তক উদ্ধার না হওয়ায় পরিচয় উদ্ঘাটন জটিল হয়ে পড়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় শনিবার রাতেই একটি হত্যা মামলা দায়ের করলেও কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। সূত্র জানায়, নারীর লাশ উদ্ধারের স্থান থেকে দুই শ গজের মধ্যেই পাওয়া গেছে একটি গলার চেন, নূপুর ও ওড়না। তা নিহত নারীর বলেই ধারণা করা হচ্ছে। খণ্ডিত মস্তকটি আশপাশে কোথাও পাওয়া যাবে বলে পুলিশের ধারণা ছিল। কিন্তু বিস্তর তল্লাশিতেও মস্তক উদ্ধার হয়নি।

নান্দাইল থানার এসআই আব্দুছ ছাত্তার বলেন, হত্যার আলামত নষ্ট ও নিহত নারীর পরিচয় অজানা রাখতেই হত্যাকারীরা মস্তক শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করেছে। আর তা কোথাও লুকিয়ে রেখেছে। এটি খুঁজতে ও খুনি শনাক্তে পুলিশি চেষ্টা চলছে।



মন্তব্য