kalerkantho


বিতর্ক অনুষ্ঠানে তোফায়েল

বর্তমান সরকারের অধীনেই হবে নির্বাচন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, নির্ধারিত সময়ে বর্তমান সরকারের অধীনেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য হবে। বিএনপিও ওই নির্বাচনে অংশ নেবে। গতকাল শনিবার ঢাকায় এক বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এফডিসি মিলনায়তনে ‘নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা বেড়েছে’ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতার গ্রান্ড ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি ও এটিএন বাংলা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তোফায়েল বলেন, দেশের সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবে। নির্বাচন কমিশনের ওপর সরকারের কোনো হস্তক্ষেপ থাকবে না। নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশনকে শুধু প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেবে।

তোফায়েল আহমেদ আরো বলেন, ‘জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের নিশ্চয়তা দিয়েছেন। আশা করছি, বিএনপিসহ দেশের সব রাজনৈতিক দল আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।’

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন। সে সময় বিএনপি নেত্রীর দেওয়া ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটামের মধ্যেই শেখ হাসিনা বিএনপি নেত্রীকে ফোন করে আলোচনায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের মন্ত্রণালয় বিএনপিকে ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচন করতে চেয়েছিল। বিএনপি নেত্রীর দেওয়া শর্ত যথাসময়ে মানার পরও তাঁরা নির্বাচনে অংশ না নিয়ে ধ্বংসাত্মক কাজে লিপ্ত হন। আমরা আশা করছি, গতবারের মতো সিদ্ধান্ত এবার তাঁরা নেবেন না। দেশের সংবিধান মোতাবেক বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন আয়োজিত জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

বিতর্ক প্রতিযোগিতায় দেশের ৩২টি সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেয়। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং রানার্স-আপ হয়েছে বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এটিএন বাংলা এবং এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান এবং ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সবুর।



মন্তব্য