kalerkantho


অনশনে অসুস্থ ১০৬ মাদরাসা শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



অনশনের চতুর্থ দিন গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত ১০৬ জন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা। এর মধ্যে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন সাতজন শিক্ষক। এ ছাড়া অনশনস্থলে অসুস্থ হয়ে পড়ায় ১৮ জন শিক্ষককে স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত কেউ তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি বলে জানা গেছে।

চাকরি জাতীয়করণের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা। বছরের প্রথম দিন থেকে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত তাঁরা অবস্থান কর্মসূচির পর গত মঙ্গলবার থেকে আমরণ অনশন চালিয়ে আসছেন। বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির ব্যানারে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে।

গতকাল বিকেলে সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, টানা ১২ দিন কর্মসূচি পালন করায় এমনিতেই অনেক শিক্ষক কাহিল হয়ে পড়েছেন। তার ওপর রাস্তার পাশে খোলা স্থানে তীব্র শীত তাঁদের আরো কাবু করে ফেলেছে। অধিকাংশ শিক্ষক চাদর কিংবা হালকা কম্বল গায়ে জড়িয়ে শুয়ে আছেন। কেউ বা বসে আছেন গুটিশুটি মেরে। অনশনরত সব শিক্ষকের মুখ ছিল মলিন।

সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের এখন শ্রেণিকক্ষে থাকার কথা। অথচ আমাদের থাকতে হচ্ছে রাজপথে। তীব্র শীতের মধ্যে কে চায় এভাবে খোলা আকাশের নিচে রাস্তায় থাকতে? আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে দীর্ঘদিন মানবেতর জীবন যাপন করছি। এভাবে কত দিন বাঁচা যায়! জাতীয়করণের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা।’

মাদরাসা বোর্ড কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন পাওয়া ১০ হাজারের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা রয়েছে। এসব মাদরাসায় শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। মাত্র এক হাজার ৫১৯টি ইবতেদায়ি মাদরাসার প্রধান শিক্ষক ২৫০০ টাকা ও সহকারী শিক্ষকরা ২৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন।

লিয়াজোঁ ফোরামের অবস্থান কর্মসূচি : শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গতকাল শুক্রবার তৃতীয় দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন বেসরকারি শিক্ষকরা। এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের পাঁচটি সংগঠন নিয়ে গঠিত বেসরকারি শিক্ষা জাতীয়করণ লিয়াজোঁ ফোরামের ব্যানারে গত বুধবার থেকে তাঁরা অবস্থান নিয়েছেন। আজ শনিবারের মধ্যে দাবি বাস্তবায়নের ঘোষণা না এলে কাল রবিবার থেকে তাঁরাও আমরণ অনশন শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন।

বেসরকারি শিক্ষকদের পাঁচটি সংগঠনের জোট লিয়াজোঁ ফোরামের নেতা নজরুল ইসলাম রনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শিক্ষাক্ষেত্রে বেসরকারি শিক্ষকরা যেসব বৈষম্যের শিকার, তা দূর করা এবং শিক্ষার গুণগত মান বজায় রাখার একমাত্র সমাধান শিক্ষাব্যবস্থার জাতীয়করণ। জাতীয়করণ করলে সরকারকে রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে তেমন অতিরিক্ত অর্থ খরচ বহন করতে হবে না। বিচ্ছিন্নভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারি না করে আমরা একসঙ্গে সব এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের দাবি জানাচ্ছি।’

অবস্থান কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য দেন বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাজেকুজ্জামান রতন, জাসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাইমুল আহসান জুয়েল, শিক্ষক সংগঠনের নেতা আব্দুল খালেক, রফিকুল ইসলাম, আবুল বাসার হাওলাদার প্রমুখ।


মন্তব্য