kalerkantho


প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ‘রাষ্ট্রদ্রোহিতা’ মানহানি মামলার হুমকি

খালেদা-ভীতির কারণে তাঁদের মস্তিষ্কেই গোলযোগ : ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে সম্পদ থাকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাকে ‘মিথ্যাচার’ বলে অভিহিত করেছে বিএনপি। সংসদে মিথ্যা তথ্য দিয়ে শপথ ভঙ্গ করা ‘এক ধরনের রাষ্ট্রদ্রোহিতা’ দাবি করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মানহানি মামলার হুমকি দিয়েছে দলটি।

বিএনপির পক্ষে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। গত বুধবার সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে বিএনপি এ সংবাদ সম্মেলন করে।

খালেদা জিয়া জোড়াতালি দিয়ে পদ্মা সেতু তৈরি করা হচ্ছে অভিযোগ করে সেই সেতুতে কাউকে না উঠতে বলার প্রেক্ষাপটে গত বুধবার সংসদে প্রধানমন্ত্রী তাঁকে ‘পাগল’ বলে মন্তব্য করেছেন। এর জবাবে গতকালের সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, বরং খালেদা জিয়া-ভীতির কারণেই ক্ষমতাসীনদের মস্তিষ্কে গোলযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গতকাল (বুধবার) সংসদে প্রধানমন্ত্রী যে সম্পদের কথা বলছেন, সম্পদের নাম দেওয়া হয়েছে; বাস্তবে সেই সম্পদগুলোর কোনো অস্তিত্বই নেই। এই মিথ্যাচার করে গোটা দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রী বিভ্রান্ত করছেন। সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) যে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন, এটা এক ধরনের রাষ্ট্রদ্রোহিতাও বটে।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অশ্রাব্য, হিতাহিত কাণ্ডজ্ঞানহীন, বিবেচনাহীন, সভ্যতা-ভব্যতা ও সুরুচির ওপর হিংস্র আগ্রাসন। আমি এহেন বক্তব্যের তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাচ্ছি।’

সংসদে প্রধানমন্ত্রীর ‘মিথ্যাচারকে’ শপথভঙ্গের সঙ্গে তুলনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘উনি (প্রধানমন্ত্রী) দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করছেন আন্ডার ওথ। শপথ নিয়েছেন যে উনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন, সত্য কথা বলবেন, মিথ্যা কথা বলবেন না। সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি মিথ্যা কথা বলতে পারেন না, সারা জাতিকে বিভ্রান্ত করতে পারেন না। অথচ সংসদে তিনি এই মিথ্যাচার করছেন।’ তবে জাতি কখনো বিভ্রান্ত হবে না, কোনো দিন হয়নি উল্লেখ করে তিনি এসব বন্ধ করার আহ্বান জানান।

সংসদে অসত্য বক্তব্য দেওয়ার জন্য একটি মানহানি মামলা হতে পারে মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘দেশের জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যে তির্যক ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন, তা শুধু অনভিপ্রেত বা দুঃখজনকই নয়, বরং এটি রাজনৈতিক পরিবেশ এবং আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে মানুষের মধ্যে সংশয় ও সন্দেহের দানা বাঁধাবে। খালেদা জিয়া-ভীতির কারণেই ক্ষমতাসীনদের মস্তিষ্কে গোলযোগ সৃষ্টি হয়েছে। আমরা সাধারণত এসব কথা বলি না। কিন্তু উনি (প্রধানমন্ত্রী) গতকাল (বুধবার) বেগম জিয়াকে নিয়ে যেসব উচ্চারণ করেছেন, এটাতে আরেকটা মানহানি মামলা হতে পারে।’

এর আগে প্রধানমন্ত্রীকে উকিল নোটিশ পাঠানোর বিষয়ে ফখরুল বলেন, ‘আমরা উকিল নোটিশ পাঠিয়েছি, তার জবাব তিনি (প্রধানমন্ত্রী) এখন পর্যন্ত দেননি। এটা প্রমাণিত, তিনি এই উকিল নোটিশের জবাব না দিয়ে প্রমাণ করে দিয়েছেন, তাঁর বক্তব্য সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট।’



মন্তব্য