kalerkantho


জিয়া এতিমখানা দুর্নীতি মামলা

‘অভিযোগ প্রমাণে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে দুদক’

আদালত প্রতিবেদক   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘অভিযোগ প্রমাণে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে দুদক’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল রাজধানীর বকশীবাজারে ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিশেষ এজলাসে হাজিরা দেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তিতর্ক শুনানির নবম দিনে গতকাল বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার পক্ষে বক্তব্যে তাঁর আইনজীবী ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক জীবন বাধাগ্রস্ত করতেই অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ এনে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে মামলাটি করা হয়েছিল। এ মামলায় আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে দুর্নীতি দমন কমিশন পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। ন্যায়বিচার করা হলে খালেদা জিয়া খালাস পাবেন।

রাজধানীর বকশীবাজারে ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিশেষ এজলাসে এ মামলার বিচার চলছে। খালেদা জিয়ার প্যানেলের চতুর্থ আইনজীবী হিসেবে জমির উদ্দিন আগের দিন শুনানি শুরু করে গতকাল দুপুরে বক্তব্য উপস্থাপন শেষ করেন। একপর্যায়ে আত্মপক্ষ সমর্থন করে খালেদার দেওয়া বক্তব্যের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অংশ আদালতে পড়ে শোনান। খালেদা জিয়া এ সময় আদালতের এজলাসে হাজির ছিলেন।

সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন বলেন, এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের দাখিল করা দলিলাদি ও সব সাক্ষীর আদালতে দেওয়া সাক্ষ্য-জেরা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা করলে স্পষ্টই প্রতীয়মান হয় যে দুর্নীতি দমন কমিশন খালেদার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। আইনের পরিভাষা ও বিধান অনুযায়ী কোনো ফৌজদারি মামলায় আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণে ব্যর্থ হলে এর সুবিধা পাবেন আসামি। আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া এতিমের টাকা চুরি করে খেয়েছেন বলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের বক্তব্য কি বিচারাধীন মামলায় আদালতের কাজে হস্তক্ষেপ করার শামিল নয়!

গতকাল মধ্যাহ্ন বিরতির পর প্যানেলের পঞ্চম আইনজীবী হিসেবে খালেদার পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপন শুরু করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তাঁর বক্তব্য চলমান থাকাবস্থায় বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান বিচার কার্যক্রম মুলতবি ঘোষণা করেন। অবশিষ্ট শুনানির জন্য আগামী মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তিন দিন ধার্য করেন।



মন্তব্য