kalerkantho


সাম্প্রদায়িক পাঠ্যপুস্তক নিয়ে উদীচী

এ প্রজন্ম স্বাধীনতা সংগ্রামের চেতনা বাস্তবায়ন করবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পাঠ্যপুস্তকে সাম্প্রদায়িক বিষয়গুলো এখনো বহাল থাকায় বিস্ময় প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। সংগঠনটি বলেছে, সাম্প্রদায়িক পাঠ্যপুস্তক পড়ার মাধ্যমে গড়ে ওঠা প্রজন্ম স্বাধীনতা সংগ্রামের চেতনা বাস্তবায়ন করবে না।

সংগঠনটির সভাপতি ড. সফিউদ্দিন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেন, নতুন পাঠ্যপুস্তকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, মানবিকতা, দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করা, সত্য, ন্যায় ও সুন্দরের প্রতি শিশু-কিশোরদের আকৃষ্ট করার বদলে পশ্চাৎপদ ও মৌলবাদের তোষণনীতিকে জায়গা দেওয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, দেশের শিক্ষাবিদ, সংস্কৃতিকর্মী, অভিভাবক ও উদ্বিগ্ন অসাম্প্রদায়িক মানুষের ন্যায্য দাবি উপেক্ষা করে গত বছর পাঠ্যপুস্তকে যুক্ত করা উদ্দেশ্যমূলক সাম্প্রদায়িক পরিবর্তন বহাল রেখেই এবার পুস্তক প্রকাশ ও বিতরণ করা হয়েছে। সরকার বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশও গ্রহণ করেনি। ব্যাপকভাবে প্রগতিশীল লেখকদের রচনা বাদ দেওয়া হয়েছে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণির বাংলা ও আনন্দপাঠ বই থেকে।

সফিউদ্দিন ও জামসেদ আনোয়ার আরো বলেন, উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর দাবি রক্ষায় গত বছর পঞ্চম থেকে দশম শ্রেণির বাংলা ও আনন্দপাঠ বই থেকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, কালিদাস রায়, সত্যেন সেন, রণেশ দাশগুপ্ত, সুকুমার রায়, ফয়েজ আহমদ, সানাউল হক, নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়, জসীমউদ্দীন, স্বর্ণকুমারী দেবী, লালন শাহ, রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়, সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়, হুমায়ুন আজাদ, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, মোতাহার হোসেন চৌধুরী, জ্ঞানদাস ও ভারতচন্দ্র রায়গুণাকরের লেখা বাদ দেওয়া হয়েছে। ২০১৮ সালের পাঠ্যপুস্তকে এসব লেখকের বাদ দেওয়া লেখাগুলো পুনঃস্থাপন করে সরকার মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনাধারার প্রতি সম্মান দেখাবে বলে আশা করেছিল সংগঠনটি। তবে তা না করে সরকার জনগণকে চরমভাবে আশাহত করেছে উল্লেখ করে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী বলেছে, ‘যার দায় সরকারকে বহন ও ফল ভোগ করতে হবে’।



মন্তব্য