kalerkantho


নারী ফুটবল দলকে প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নারী ফুটবল দলকে প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা

গণভবনে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা জাতীয় ফুটবল দলের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে খেলোয়াড়দের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী। ছবি : বাসস

সাফ অনূর্ধ্ব ১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলকে সংবর্ধনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, তারা বাংলাদেশের জন্য সম্মান বয়ে এনেছে। এই সাফল্যকে বাংলাদেশের জন্য বিশাল অর্জন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সাফ অনূর্ধ্ব ১৫ ফুটবল টুর্নামেন্টে ভারতকে পরাজিত করে বিজয় ছিনিয়ে আনা আমাদের মেয়েদের জন্য খুব সহজ ছিল না।’

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ক্রীড়াপ্রেমী প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের জন্য এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। তিনি লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় আরো মনোযোগী হতে ছেলে-মেয়েদের প্রতি আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় নিজেদের সম্পৃক্ত করেছে, তারা ভালো করেছে। তাদের মনমানসিকতা অনেক বড় হবে এবং তারা কখনো ভুল পথে পা বাড়াবে না। তিনি ফুটবলকে বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় খেলা উল্লেখ করে বলেন, ফুটবলে যথাযথ মনোযোগ দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী পরে কিছু উপহার বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেন।

দক্ষিণ এশিয়া ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ এবং বিএফএফের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গত ২৪ ডিসেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব ১৫ সাফ ওমেন চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ।

কুয়েতের সশস্ত্র বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকাল গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন সফররত কুয়েতের সশস্ত্র বাহিনীর  চিফ অব জেনারেল স্টাফ লে. জেনারেল মোহাম্মদ খালেদ আল খাদের। তিনি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের পেশাদারি ও নিষ্ঠার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। খাদের বলেন, বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ছয় হাজার ১২০ জন সৈনিক ও কর্মকর্তা বর্তমানে কুয়েতে কাজ করছেন এবং তাঁরা খুবই পেশাদার ও নিষ্ঠাবান।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে প্রধানমন্ত্রী বুধবার এক হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া জেনারেল খাদেরের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নেন। জেনারেল খাদের তাঁদের বহনকারী হেলিকপ্টার শ্রীমঙ্গলে জরুরি অবতরণের পর উদ্ধার অভিযান শুরু করতে সেনাবাহিনীর দ্রুত সাড়া দান ও পাঁচ মিনিটের মধ্যে তাঁদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘এটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সামর্থ্য প্রমাণ করে।’ তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও কুয়েতের বিভিন্ন ক্ষেত্রে দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে এবং তাঁর সফর দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরো জোরদার করবে।

শেখ হাসিনা কুয়েতের সশস্ত্র বাহিনী প্রধানের মাধ্যমে দেশটির আমির ও প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা জানান। সূত্র : বাসস।



মন্তব্য