kalerkantho


৫ জানুয়ারির সমাবেশ করা নিয়ে বিএনপি এবারও অনিশ্চয়তায়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



আগামীকাল ৫ জানুয়ারি পূর্বঘোষিত কর্মসূচি এ বছরও বিএনপি পালন করতে পারবে কি না, তা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। কারণ তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করতে চাইলেও গতকাল বুধবার পর্যন্ত এ ব্যাপারে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশসহ (ডিএমপি) সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি মেলেনি। তবে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অনুমতি দেওয়া না হলে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশের অনুমতি দিলেও বিএনপি রাজি আছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সমাবেশের অনুমতির ব্যাপারে ডিএমপির মনোভাব জানতে আজ বৃহস্পতিবার বিএনপির একটি প্রতিনিধিদল সেখানে যাবে। যদি শেষ মুহূর্তেও নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে অনুমতি মেলে, তাহলেও বিএনপি ওই সমাবেশ করতে রাজি আছে। মহানগর বিএনপি দক্ষিণের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল এ কথা জানান।

জানতে চাইলে রিজভী আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা আশা করছি জনসভার অনুমতি পাব। দেখি, সরকার শেষ পর্যন্ত কী করে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকার অনুমতি না দিলে পরবর্তী করণীয় নিয়ে এখনো কোনো আলোচনা হয়নি।

দেশে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপিসহ অনেক রাজনৈতিক দল বর্জন করে। পরের বছর থেকেই বিএনপি ওই দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। তবে গত বছরও ওই দিনে সরকার বিএনপিকে কোনো সমাবেশ করার অনুমতি দেয়নি। এ বছর দলটির পক্ষ থেকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশসহ জেলা, মহানগর ও উপজেলায় কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

তবে এ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে এখনই কোনো সংঘাতে জড়াতে চাচ্ছে না বিএনপি। বরং কর্মসূচি যাতে শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয় এমন নির্দেশনা রয়েছে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে। তিনি আগামী নির্বাচনকে টার্গেট করে সংঘাত এড়িয়ে ঢাকার বাইরেও ঘোষিত কর্মসূচি সফল করতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। সূত্র মতে, প্রতিটি সংসদীয় আসনে এ কর্মসূচি করার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চেয়ে বিএনপি আবেদন করেছে। এখনো অনুমতি দেয়নি পুলিশ। তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম সূত্রে জানতে পেরেছি যে সেখানে ৫ জানুয়ারি অখ্যাত ও অজানা একটি দলকে অনেক আগেই জনসভার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এটি সরকারের হীন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ। এটি সরকারের হিংসাপরায়ণ নীতিরও একটি অংশ।’

রিজভী বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতে চাই যে সরকার বিএনপির গণতান্ত্রিক অধিকারের প্রতি সম্মান জানাবে। সমাবেশের অনুমতি দিয়ে বিএনপিকে শান্তিপূর্ণ সমাবেশের সুযোগ করে দেবে।’



মন্তব্য