kalerkantho


তেজগাঁওয়ে ত্রিমুখী সংঘর্ষ

পুলিশের মামলা আসামি ৫০০ গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানীর তেজগাঁওয়ে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী, স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় ৫০০ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। গতকাল বুধবার মামলাটি করেন তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার এসআই আব্দুর বারেক। মামলায় সংঘর্ষের সময় ঘটনাস্থল থেকে আটক তিনজনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ছাড়া এ ঘটনায় তিন শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার এসআই ফরিদ বলেন, পুলিশের ওপর আক্রমণ ও জনপথে বাধা সৃষ্টি করে ভাঙচুরের অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে। এতে অজ্ঞাতনামা ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। আটক তিনজন হলেন শিক্ষার্থী ফজর আলী এবং এলাকাবাসী শফিকুল ও মোস্তফা কামাল।

ঢামেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ ১৭ জন শিক্ষার্থী মঙ্গলবার রাতে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যায়। চিকিৎসা শেষে ১৪ জন রাতে বাসায় চলে যায়। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত তিন শিক্ষার্থী বাসুদেব, মাজহার ও নাদিম হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাঁদের হাত, পা ও পিঠে ছররা গুলি লেগেছে।  

প্রাথমিক তদন্তে যৌন হয়রানির ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষ বাধে বলে জানা গেছে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা মেহেদী হাসান শামীমের দাবি, নেতার সামনে দিয়ে রিকশায় চড়াকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষ হয়। তিনি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রিকশাযোগে পলিটেকনিকের সামনে দিয়ে বেগুনবাড়ীর বাসায় যাচ্ছিলেন। এ সময় ছাত্রলীগের প্রায় ৩০ জন নেতাকর্মী সেখানে দাঁড়িয়েছিল। এদের মধ্যে কয়েকজন তাঁর গতিরোধ করে বলে—নেতারা দাঁড়িয়ে আছে, আর তুই রিকশা দিয়ে যাস! পরে তাঁকে রিকশা থেকে নামিয়ে মারধর করে। তারা এখানেই থেমে থাকেনি। পলিটেকনিক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল মোল্লা এসে তাঁকে কানে ধরে ওঠবোস করান। পাশাপাশি ভিডিও ধারণ করেন। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাঁর বিরুদ্ধে এক নারীকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ তোলে। রাতে তিনি বিষয়টি এলাকার বড় ভাই ও তাঁর বন্ধুদের জানালে তারা প্রতিবাদ করে। একপর্যায়ে সাইফুল গ্রুপের নেতাকর্মীরা তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর করে তারা।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার ওসি আব্দুর রশিদ বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত শেষ হলে বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে।

প্রসঙ্গত, এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত শিক্ষার্থী, স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়লে কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়।


মন্তব্য