kalerkantho


বসুন্ধরা আই হসপিটালের অনন্য উদ্যোগ

ছানি পড়া চোখে ফিরবে আলো

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ছানি পড়া চোখে ফিরবে আলো

টাঙ্গাইলের সখীপুরে চোখের চিকিৎসা নিচ্ছেন এক বৃদ্ধ। ছবি : কালের কণ্ঠ

বয়স ৮০ বছর। দুটি চোখে ছানি পড়েছে। কিছুই দেখতে পারেন না। একা চলতে পারেন না। টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে পারেন না। ফের চোখে আলো ফিরে পাবেন, এটা ক্রমে তাঁর কাছে স্বপ্ন হয়ে যাচ্ছিল।

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কালিয়া ঘোনারচালা গ্রামের এই বৃদ্ধের নাম আব্দুল আলীম। একই উপজেলার বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চক্ষু ক্যাম্পে ঢাকা থেকে চিকিৎসক আসবেন শুনে ছেলে আশরাফকে সঙ্গে নিয়ে এসেছিলেন। গতকাল মঙ্গলবার চিকিৎসকরা তাঁকে দেখে তাত্ক্ষণিক চিকিৎসা দিয়েছেন। এ জন্য তাঁকে কোনো টাকা দিতে হয়নি। শুধু তাই নয়, তাঁকে ঢাকায় নিয়ে অস্ত্রোপচার করে ছানিও দূর করা হবে। পুরো কাজটি হবে বিনা মূল্যে। এটা শুনে এবং ফের দেখতে পাওয়ার আশায় তাঁকে গতকাল খুব আনন্দিত দেখা গেছে।

গতকালের এই ক্যাম্পে চার শতাধিক দরিদ্র রোগীর চোখের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দিয়েছে বসুন্ধরা আই হসপিটাল। তারাই ছানি পড়া রোগীদের ঢাকায় নিয়ে বিনা মূল্যে অস্ত্রোপচার করে দেবে।

সকাল ১০টায় এ ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন ব্যবসায়ী মো. জাহিদ হাসান। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন শান ট্রাভেলসের পরিচালক প্রকৌশলী মোশারফ হোসেন। প্রবীণ কল্যাণ কেন্দ্রের সভাপতি মো. শাহজালাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ডা. শামসুল হক, আ. হালিম সরকার, মুক্তিযোদ্ধা এম ও গণি, খান মো. সেলিম, মো. আয়নাল হক প্রমুখ বক্তব্য দেন। দিনব্যাপী এ ক্যাম্পে চক্ষু বিশেষজ্ঞ এম এ খালেক রোগী দেখেন। যৌথভাবে চক্ষু ক্যাম্পটির আয়োজন করে বসুন্ধরা আই হসপিটাল ও প্রবীণ কল্যাণ কেন্দ্র।

ক্যাম্পে আসা পাশের ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার কৈয়াদী গ্রামের ৯০ বছরের বৃদ্ধা আমেনা বলেন, ‘আগে আমার দুইটা চোখেই দেখবার পারতাম না। ঢাকা নিয়া টেহা ছারা এক চোখ অপারেশন করবার পর এহন আমি দেখবার পারি। আরেক চোখ দেহাইতে আবার আইছি।’

ঘাটাইল উপজেলার জোড়দীঘি গ্রাম থেকে চিকিৎসা নিতে আসা বিধবা সুমলা (৭০) বলেন, ‘পুলারা আমারে দেহে না, নাতি আমার দেহাশুনা করে। চোখে ছানি পরায় দুনিয়া দেখবার পারি না। টেহা-পয়সার অভাবে চিকিৎসা করাইতে পারি না। মাগনা ডাক্তার দেহাইতে নাতিডা আমারে নিয়া আইছে।’

ভালুকা উপজেলার বাটাজোর সোনার বাংলা ডিগ্রি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী নাজনীন আক্তার (১৮)  বলেন, ‘এ ধরনের আয়োজন করার জন্য বসুন্ধরা আই হসপিটাল ও প্রবীণ কল্যাণ কেন্দ্রকে কৃতজ্ঞতা জানাই।’

প্রবীণ কল্যাণ কেন্দ্রের সভাপতি মো. শাহজালাল চৌধুরী জানান, গ্রামের অসহায় দরিদ্রদের চার বছর ধরে তাঁরা যৌথভাবে বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ দিয়ে আসছেন। তিনি বলেন, ‘এবার ঢাকায় নিয়ে বিনা মূল্যে অস্ত্রোপচার করার জন্য ছানি পড়া ১০০ রোগী বাছাই করা হয়েছে।’

বসুন্ধরা আই হসপিটালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ এম এ খালেক বলেন, ‘ক্যাম্পে ৪০০-এর বেশি চোখের রোগীকে ব্যবস্থাপত্রের পাশাপাশি বিনা মূল্যে ওষুধ দেওয়া হয়েছে।’



মন্তব্য