kalerkantho


ইউনিসেফের তথ্য

বছর শুরুর দিন দেশে ৮৩৭০ শিশুর জন্ম

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



২০১৮ সালের প্রথম দিন গতকাল সোমবার বাংলাদেশে আট হাজারেরও বেশি শিশুর জন্ম হয়েছে বলে ধারণা করছে জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক জরুরি শিশু তহবিল (ইউনিসেফ)। এই দিনে সারা বিশ্বে জন্ম নেওয়া শিশুর সম্ভাব্য সংখ্যা তিন লাখ ৮৫ হাজার ৭৯৩। তাদের মধ্যে ২.১৭ শতাংশের জন্মই বাংলাদেশে। গতকাল ঢাকায় ইউনিসেফ এ কথা জানিয়েছে।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি এডওয়ার্ড বেইগডেবার বলেন, ‘আমরা যে যুগে ঢুকছি সেখানে সবার বাইশ শতক দেখার সুযোগ পাওয়া উচিত। তবে দুঃখজনক হলো, এ বছর জন্ম নেওয়া শিশুদের প্রায় অর্ধেকই সে সুযোগ পাবে না।’ আয়ুষ্কাল বিবেচনায় নিয়ে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে সুইডেনে জন্ম নেওয়া শিশুরা সম্ভবত ২১০০ সাল পর্যন্ত বাঁচবে। তবে বাংলাদেশে এ মাসে জন্ম নেওয়া শিশুদের ২০৯১ সালের বেশি বাঁচার সম্ভাবনা কম।’

এবার নববর্ষে সম্ভবত প্রথম শিশুটির জন্ম হয়েছে কিরিবাতির ক্রিসমাস আইল্যান্ডে। আর নববর্ষের প্রথম দিনের শেষ শিশুর জন্ম হবে সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রে। গতকাল সারা বিশ্বে জন্ম নেওয়া মোট শিশুর অর্ধেকেরই জন্ম ৯টি দেশে। এগুলো হলো—ভারত (৬৯ হাজার ৭০), চীন (৪৪ হাজার ৭৬০), নাইজেরিয়া (২০ হাজার ২১০), পাকিস্তান (১৪ হাজার ৯১০), ইন্দোনেশিয়া (১৩ হাজার ৩৭০), যুক্তরাষ্ট্র (১১ হাজার ২৮০), গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র (৯ হাজার ৪০০), ইথিওপিয়া (৯ হাজার ২০) ও বাংলাদেশ (আট হাজার ৩৭০)।

ইউনিসেফ জানায়, অনেক শিশু বেঁচে থাকবে। আবার অনেকে প্রথম দিনই অতিক্রম করতে পারবে না। ২০১৬ সালের এক হিসাব অনুযায়ী, প্রতিবছরের প্রথম ২৪ ঘণ্টায় প্রায় দুই হাজার ৬০০টি শিশুর মৃত্যু হয়ে থাকে। বিশ্বের প্রায় ২০ লাখ নবজাতকের জীবনের প্রথম সপ্তাহই তাদের শেষ সপ্তাহ। ২৬ লাখ শিশু তাদের জন্মের এক মাসের মধ্যেই মারা যায়। আর ওই শিশুদের মধ্যে ৮০ শতাংশের মৃত্যু হয় প্রতিরোধযোগ্য ও চিকিৎসাযোগ্য কারণে যেমন অপরিণত জন্ম, প্রসবকালীন জটিলতা এবং নিউমোনিয়ার মতো রোগের সংক্রমণে।

 


মন্তব্য