kalerkantho


মহিলা পরিষদের প্রতিবেদন

এক বছরে নির্যাতনের শিকার ৫২৩৫ নারী ও কন্যাশিশু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১৭ সালে নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের মাত্রা ছিল ভয়াবহ। এ বছর উদ্বেগজনক হারে ধর্ষণের ঘটনা বৃদ্ধিসহ পাঁচ হাজার ২৩৫ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এক হাজার ২৫১টি ধর্ষণ ও ২২৪টি গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল সোমবার বলা হয়েছে, শুধু গত ডিসেম্বর মাসে ৪২৭টি নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে, যার মধ্যে ১০৭টি ধর্ষণ ও ১৩টি গণধর্ষণের ঘটনা রয়েছে। সারা বছরে নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের ঘটনা রয়েছে পাঁচ হাজার ২৩৫টি। এ বছর এসিড সন্ত্রাসের শিকার হয়েছে ৪০ জন, এর মধ্যে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। অগ্নিদগ্ধ হয়েছে ৯১ জন, এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ১৪৩টি। নারী ও শিশু পাচার করা হয়েছে ৯৫ জন, এর মধ্যে পতিতালয়ে বিক্রি করা হয়েছে ৬০ জনকে। ৭১৩ জন নারী ও শিশুকে হত্যা করা হয়েছে, হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে ৫৯ জনকে। যৌতুকের জন্য নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৩৮৯ জন নারী, এর মধ্যে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে ২০৮ জনকে। গৃহপরিচারিকা নির্যাতনের শিকার হয়েছে ২৫ জন, এর মধ্যে হত্যা করা হয়েছে ১২ জনকে এবং নির্যাতনের কারণে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে পাঁচজন।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এক বছরে ফতোয়ার শিকার হয়েছে ৪৫ জন নারী। বিভিন্ন নির্যাতনের কারণে ৪২৩ জন আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে। বাল্যবিয়ের চেষ্টা ছিল ৪৪৪টি, এর মধ্যে ১৯৭টি বাল্যবিয়ে সম্পন্ন হয়েছে, প্রতিরোধ করা হয়েছে ২৪৭টি। এক বছরে পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৩২ জন নারী। পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত নেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয় বলে সংগঠনটি জানিয়েছে।

 



মন্তব্য