kalerkantho


অন্য রকম বই উৎসব

পাঠ্যপুস্তক উৎসব রাঙাল পাঁচ যমজের শিক্ষাজীবন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পাঠ্যপুস্তক উৎসব রাঙাল পাঁচ যমজের শিক্ষাজীবন

গোপালগঞ্জে নতুন বই হাতে যমজ পাঁচ ভাই-বোন। ছবি : কালের কণ্ঠ

বছরের প্রথম দিন দেশজুড়ে পাঠ্যপুস্তক উৎসব প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ কিছু। এদিন নতুন বই হাতে নিয়ে ঘ্রাণ শুঁকতে শুঁকতে শিক্ষার্থীরা বাড়ি ফেরে। পাঠ্যপুস্তক উৎসবের এই আনন্দঘন পরিবেশ অন্য রকম মাত্রা পেয়ে যায় গোপালগঞ্জে। গতকাল সোমবার গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ৮১ নম্বর করপাড়া মধ্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক অভূতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হয়। মা-বাবার হাত ধরে গতকাল দুপুরে ওই স্কুলে হাজির হয় পাঁচ ভাই-বোন। রুবাইয়া খান হীরা, রুশরা খান মনি, রামিসা খান মুক্তা, রাইসা খান মালা ও মাহির গফ্ফার মানিক। একই দিনে জন্ম নেওয়া এই পাঁচ ভাই-বোন ওই স্কুলের শিশু শ্রেণিতে ভর্তি হতে গেলে পাঠ্যপুস্তক উৎসবটি ভিন্নমাত্রা পেয়ে যায়।    

একই দিনে জন্ম নেওয়া পাঁচ ভাই-বোনের স্কুলে ভর্তি হতে আসার খবর পেয়ে এলাকার বিপুলসংখ্যক মানুষ তাদের দেখতে ছুটে আসে। স্কুলটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও ওই শিশুদের পরম স্নেহে বরণ করে নেয়। পরে তাদের হাতে নতুন বই তুলে দিয়েই শুরু হয় ওই স্কুলের বই বিতরণ উৎসব।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার রায়, স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম খান টিটো, শিশুদের বাবা করপাড়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার গফ্ফর খান, মা সোমাইয়া খানম এবং অন্য অভিভাবকরা।

ভর্তি হওয়ার পর পাঁচ শিশু জানায়, লেখাপড়া শেষ করে ভবিষ্যতে তারা পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিতে চায়।

শিশুদের মা সোমাইয়া খানম সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, ভবিষ্যতে তাঁর সন্তানরা মানুষ হয়ে দেশের উপকারে এলে তিনি খুশি হবেন। 

বাবা গফ্ফর খান জানান, পাঁচ সন্তানকে একসঙ্গে স্কুলে ভর্তি করতে পেরে তিনি ভীষণ আনন্দিত। তাঁর সন্তানরা পড়ালেখা শেষ করে যাতে সমাজের সেবায় আত্মনিয়োগ করে এ জন্য তিনি সবার কাছে দোয়াপ্রার্থী।

বনগ্রামের বাসিন্দা ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এস এম নজরুল ইসলামও এসেছিলেন ওই পাঁচ শিশুকে দেখতে। তিনি জানান, জন্ম নেয়ার পর ওই পাঁচ শিশুকে দেখতে গিয়েছিলেন তিনি। ওই শিশুরা এখন স্কুলে লেখাপড়া করতে এসেছে, এটা ভারি আনন্দের। ওই পাঁচ শিশুর প্রতি বিশেষ নজর রাখতে শিক্ষকদের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার রায় বলেন, এই পাঁচ শিশু তাঁর স্কুলে ভর্তি হওয়ায় তিনি অনেক খুশি। পাঁচ শিশুর লেখাপড়ার প্রতি বিশেষ যত্ন নেবেন বলেও জানান তিনি। 

২০১২ সালের ২১ জুলাই এই পাঁচ শিশু জন্মগ্রহণ করে।


মন্তব্য