kalerkantho


নিজ দুর্গে পরাজয় বিএনপির জন্য একটি সংকেত

বোদা পৌর নির্বাচন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পঞ্চগড়ের বোদা পৌরসভায় বিএনপি প্রার্থীর ভরাডুবি হয়েছে। এর পেছনে দলীয় কোন্দল আর অযোগ্য প্রার্থীকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়াকেই প্রধান কারণ হিসেবে দেখছে তৃণমূল বিএনপি। শুধু পৌরসভা নয়, এর আগে ইউনিয়ন পরিষদগুলোতেও একই কারণে বিএনপির ভরাডুবি হয়েছে বলে মনে করে তারা। তারা এটাকে আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য একটি সংকেত হিসেবে উল্লেখ করেছে।

একসময়ের বিএনপির দুর্গ বোদা উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভায় বিএনপির ভরাডুবির জন্য উপজেলা ও পৌর বিএনপির নেতাকর্মীরা দায়ী করেছে পঞ্চগড়-২ আসনে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ফরহাদ হোসেন আজাদকে।

গত ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বোদা পৌরসভার নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয় উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হকিকুল ইসলামকে। দলীয়ভাবে জনপ্রিয়তাহীন হকিকুলকে মনোনয়ন দেওয়ায় বিএনপির একটি বড় অংশের সমর্থন নিয়ে প্রার্থী হন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আখতার হোসেন হাসান। একই দলের দুজন প্রার্থী হওয়ায় মেয়র পদটি নিজেদের দখলে নিতে পারেনি বিএনপি। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান সুজা জয়লাভ করেন। আবার উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মাত্র একটিতে বিএনপির প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের নানাবাড়ি বোদা উপজেলায়। তাই বিএনপির এই দুর্গে ভরাডুবির পর ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। বোদা পৌর বিএনপির সভাপতি আব্দুস সামাদ তারা বলেন, ‘ফরহাদ হোসেনের কারণেই আমাদের দলীয় কোন্দলের সৃষ্টি হয়েছে। তাঁর স্বেচ্ছাচারিতার কারণে আজ আমরা বোদা পৌরসভায় মেয়র পদটি দখল করতে পারলাম না। তাঁর সমর্থকদের না দিয়ে তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে যোগ্য প্রার্থীকে দলীয়ভাবে মনোনয়ন দিলে আমরা নিশ্চিত জয়ী হতাম।’

বোদা উপজেলা বিএনপির নেতা আবু হোসেন বলেন, ‘প্রার্থী বাছাইয়ে বিএনপির কেন্দ্র থেকে যে ভুল বারবার করা হচ্ছে তার মাসুল দিতে হচ্ছে আমাদের। ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির ভরাডুবি আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য একটি সংকেত। কেন্দ্রীয় বিএনপিকে এখন থেকেই বিষয়টি ভাবতে হবে।’

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আখতার হোসেন হাসান বলেন, ‘আমাকে দলীয়ভাবে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য পৌর বিএনপির ২৭ জনের মধ্যে ২৪ জন এবং উপজেলা বিএনপির ৪৫ জনের মধ্যে ৪২ জন সুপারিশ করেছেন; কিন্তু তাঁদের মতামতকে উপেক্ষা করে কেন্দ্রীয় এক নেতাকে খুশি করতে অন্যজনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তাই বিএনপির এই পরাজয়।’

তবে ফরহাদ হোসেন আজাদ বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌর নির্বাচনে তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতেই কেন্দ্রীয় বিএনপি থেকে প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। এখানে আমার কোনো হাত নেই। ক্ষমতাসীন দল টাকা দিয়ে ভোট কিনেছে। আবার দলীয় প্রার্থীকে হারানোর জন্য কাজ করেছেন আমাদের দলেরই এক প্রার্থী। তাই বোদা পৌরসভায় বিএনপির পরাজয় হয়েছে। আর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সারা দেশে একই অবস্থা। সবার মতামতের ভিত্তিতেই কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল; কিন্তু কেউ পাস করতে পারেনি। একটি মহল মিথ্যা অভিযোগ তুলে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য অপপ্রচার চালাচ্ছে।’



মন্তব্য