kalerkantho


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সভাপতি পদ হারাচ্ছেন অধ্যাপক নাসিমা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের দ্বন্দ্বের জেরে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি পদ থেকে সরে যেতে হচ্ছে অধ্যাপক ড. নাসিমা জামানকে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তাঁকে অনুরোধ জানাবেন বলে সিন্ডিকেট সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে। অন্যদিকে শিক্ষক নিয়োগে আবার নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শিক্ষক নিয়োগের জন্য সিজিপিএ পয়েন্ট কমিয়ে আনার বিষয়ে সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়।

সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে শনিবার সন্ধ্যায় সিন্ডিকেটের ৪৭৫তম সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষক নিয়োগসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা হয়। আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে ছিল অধ্যাপক ড. নাসিমা জামানের ভূমিকা। গত ২৭ জুলাই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুখসানা পারভীনের বিরুদ্ধে অসদাচরণের লিখিত অভিযোগ করেন বিভাগের ১১ জন শিক্ষক। এরপর অভিযুক্ত শিক্ষক উপাচার্যের কাছে ১১ জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন যৌন হয়রানি, অর্থ আত্মসাৎসহ বিভিন্ন বিষয়ে। তখন অধ্যাপক নাসিমা জামান উপস্থিত ছিলেন। এ অবস্থায় ১১ শিক্ষক বিভাগীয় সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন রুখসানা পারভীনকে মদদ দেওয়ার। শিক্ষকদের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একটি কমিটি গঠন করে ঘটনা তদন্তে। বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক আকতার ফারুকের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে সিন্ডিকেট সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. কে বি এম মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বেশির ভাগ শিক্ষকের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে নাসিমা জামানের অপসারণের বিষয়টি সিন্ডিকেট সভায় আলোচনা হয়। শিক্ষকদের এমন মুখোমুখি অবস্থানের জন্য বিভাগে প্রায় অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। সব কিছু বিবেচনা করে সভায় নাসিমা জামানকে অপসারণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।’ আরেক সদস্য ড. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘নাসিমা জামানের পদত্যাগ বিষয়ে তাঁর সাথে কথা বলবেন উপাচার্য। সভায় রুখসানা পারভীনের ব্যাপারে কোনো আলোচনা হয়নি। শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে শিক্ষার্থীরা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে জন্য এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে প্রশাসন। অনুষদভিত্তিক সিজিপিএ পয়েন্টে ভিন্নতা আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সিন্ডিকেট সভায়।


মন্তব্য