kalerkantho


ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৭

ভাঙল সাহিত্যের মিলনমেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ভাঙল সাহিত্যের মিলনমেলা

শ্রীলঙ্কার তরুণ সাহিত্যিক অনুক অরুদপ্রগাসমের হাতে লিট ফেস্টে সম্মানজনক পুরস্কার তুলে দেন অর্থমন্ত্রী। ছবি : কালের কণ্ঠ

আড্ডা আর কথোপকথনে অভিজ্ঞতাবিনিময়ে বিশ্বসাহিত্যের দিকপালরা আসর জমালেন বাংলা একাডেমিতে। আর সেই অভিজ্ঞতাবিনিময়ে সাহিত্যের জয়গান গাইলেন বিশ্বের ২৪টি দেশের দুই শতাধিক সাহিত্যিক।

ম্যান বুকারজয়ী সাহিত্যিক থেকে শুরু করে অস্কারজয়ী অভিনয়শিল্পীরাও ছিলেন আন্তর্জাতিক সাহিত্যের এই আসরে। সাহিত্যে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার ডিএসসি পুরস্কার প্রদান, ব্রিটিশ সাহিত্য জার্নাল ‘দ্য গ্রান্টার’-এর মোড়ক উন্মোচন, আড্ডা আর আলোচনার মধ্য দিয়ে বাংলা একাডেমিতে তিন দিনের আন্তর্জাতিক সাহিত্য আসর ‘ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৭’-এর পর্দা নামল গতকাল শনিবার।

শেষ দিনে সকাল ৯টায় শুরু হয়ে এই আয়োজন চলে রাত প্রায় ৮টা পর্যন্ত। সকালে উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে উজানভাটি শিল্পীগোষ্ঠীর মারফতি গানের মধ্য দিয়ে এদিনের আয়োজন শুরু হয়। সমাপনী দিনে ৩৮টি অধিবেশনসহ তিন দিনে শতাধিক সেশন অনুষ্ঠিত হয়। সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এ উৎসবের আয়োজনে ছিল যাত্রিক। উৎসব পরিচালক ছিলেন কাজী আনিস আহমেদ, সাদাফ সায্্ সিদ্দিকী ও আহসান আকবার। এবারের উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ছিল ঢাকা ট্রিবিউন ও বাংলা ট্রিবিউন, সহপৃষ্ঠপোষক হিসেবে ছিল ব্র্যাক ব্যাংক।

ডিএসসি পুরস্কার পেলেন অনুক অরুদপ্রগাসম : সমাপনী সন্ধ্যায় একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে প্রদান করা হয় দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক সাহিত্যের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার ডিএসসি প্রাইজ ফর সাউথ এশিয়ান লিটারেচার।

‘দ্য স্টোরি অব আ ব্রিফ ম্যারেজ’ বইয়ের জন্য এ পুরস্কার পেয়েছেন শ্রীলঙ্কার তরুণ সাহিত্যিক অনুক অরুদপ্রগাসম। বিচারকমণ্ডলীর প্রধান ছিলেন ভারতীয় নারীবাদী লেখিকা রিতু মেনন। পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখক অনুকের হাতে পুরস্কার তুলে দেন অনুষ্ঠানের সমাপনী আসরের প্রধান অতিথি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। দক্ষিণ এশিয়া নিয়ে যেকোনো ধরনের লেখা এ পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। ডিএসসি পুরস্কারের সঙ্গে ২৫ হাজার ডলারের সম্মাননাও প্রদান করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয় ও অভিজ্ঞতাবিনিময়ে এই উৎসব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সাহিত্যের সমৃদ্ধিতে নিঃসন্দেহে এটি একটি বেস্ট ফেস্ট। অনুভূতি প্রকাশে ডিএসসি পুরস্কার বিজয়ী অনুক অরুদপ্রগাসম বলেন, “শ্রীলঙ্কার অনেক প্রকাশকের দ্বারস্থ হয়েছি। কিন্তু বইটি প্রকাশে তারা খুব একটা আগ্রহ দেখায়নি। পরে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ‘গ্রান্টা’ প্রকাশ করেছে। এই পুরস্কার শ্রীলঙ্কাবাসীদের উৎসর্গ করলাম। পুরস্কারের অর্থ রোহিঙ্গা সম্প্রদায় ও মানবতার সেবায় নিবেদিত সংস্থাগুলোকে দান করব। ”

‘গ্রান্টা’র মোড়ক উন্মোচন : সমাপনী দিনে বিশ্বখ্যাত সাহিত্য সাময়িকী ‘গ্রান্টা’র মোড়ক উন্মোচন করেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন লেখক করণ মহাজন, মার্কিন লেখক ক্যাথরিন ডন, গ্রান্টার সম্পাদনা সহকারী যুক্তরাজ্যের ইলিয়ন চেন্ডলার ও মার্কিন ঔপন্যাসিক জেসি বেল। গ্রান্টা সাময়িকীতে নিজের লেখা প্রসঙ্গে করণ মহাজন বলেন, ‘দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকার সংস্কৃতির মধ্যে দারুণ মিল রয়েছে। আমেরিকার জীবনযাপন, সেখানকার নাগরিকদের বেড়ে ওঠা ইত্যাদি নানা বিষয় আমার লেখায় উঠে এসেছে। আমেরিকাতে বাস করলেও সেখানে আমি ভারতের সংস্কৃতির সঙ্গে মার্কিন সংস্কৃতির পার্থক্যগুলো খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছি। ’

দিনের অন্যান্য সেশন : সকালে বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে ছিল ‘উইমেন, আর্ট অ্যান্ড পলিটিকস’ শীর্ষক অধিবেশন। বি রাওলাটের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন  লেখক ও অভিনেতা এস্থার ফ্রয়েড, স্পোকেন ওয়ার্ড আর্টিস্ট বিগো চিওল, লেখক ও অভিনেত্রী নন্দনা সেন এবং লিট ফেস্টের পরিচালক সাদাফ সায্। ভাস্কর নভেরা প্রদর্শনী কক্ষে ছিল ‘পেন : কলমকে কেন এত ভয়?’ শীর্ষক অধিবেশন। সাংবাদিক তানিম আহমেদের সঞ্চালনায় আলোচনা করেন সমকালের ফিচার সম্পাদক কবি মাহবুব আজীজ, কথাসাহিত্যিক আহমেদ মোস্তফা কামাল, কথাসাহিত্যিক লাভলী বাশার ও ভারতীয় সাহিত্যিক বল্লারি সেন।

কসমিক টেন্টে আট থেকে ১৪ বছরের শিশুদের জন্য আয়োজন করা হয়েছিল ‘ফান ম্যাথ ফর কিডস’। এই আয়োজনে অংশ নেন নন্দনা সেন। ‘ডটারস অব জোড়াসাঁকো’ শিরোনামের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় এরপর। ‘ধর্ষণ-পৌরুষের ক্ষমতা, পৌরুষের অক্ষমতা’ অধিবেশনে কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক, রিতা দাস রায়, অধ্যাপক সাদেকা হালিম, বিনা বিশ্বাস অংশ নেন। নজরুল মঞ্চে সকালবেলায় ছিল ‘পরান দ্য পোস্টম্যান’ শিরোনামের কবিতা আসর। পরে ‘স্বরচিত কবিতা ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কবিতা আবৃত্তি’ শিরোনামের অধিবেশনে অংশ নেন জহরসেন মজুমদার ও জুয়েল মাজহার।


মন্তব্য