kalerkantho


শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অটিজম প্রকল্প

সাড়ে ৬ কোটি টাকার কাজ ১৩ কোটিতে করার পাঁয়তারা!

শরীফুল আলম সুমন   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ন্যাশনাল একাডেমি ফর অটিজম অ্যান্ড নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅ্যাবিলিটিজ (এনএএএনডি) প্রকল্পের যাত্রা শুরু হয় প্রায় তিন বছর আগে। অথচ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তরের বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পটি যেন ওখানেই থেমে আছে।

সবেমাত্র একাডেমিক ভবন নির্মাণকাজের উপদেষ্টা নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আর প্রকল্পের প্রথম দৃশ্যমান কাজেই অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। কাজটি দেশের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান মাত্র সাড়ে ছয় কোটি টাকায় করতে আগ্রহী থাকলেও আরেক প্রতিষ্ঠানকে তা প্রায় ১৩ কোটি টাকায় দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে। এ অবস্থায় সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষাসচিব ও প্রকল্প পরিচালক বরাবর অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, এনএএএনডি প্রকল্পের একাডেমিক ভবন নির্মাণকাজের উপদেষ্টা নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হলে দুটি প্রতিষ্ঠান কারিগরি ও আর্থিক প্রস্তাব দাখিল করে। এর মধ্যে কারিগরি প্রস্তাবে শহীদুল্লাহ অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস লিমিটেড পায় ৮৫.৫৩ নম্বর এবং মেসার্স ইঞ্জিনিয়ার্স কনসালট্যান্স বাংলাদেশ লিমিটেড পায় ৭৭.১৯ নম্বর। কিন্তু দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি কোনো প্রস্তাব গ্রহণ না করে দ্বিতীয় দফা দরপত্র আহ্বান করে। এতে ইঞ্জিনিয়ার্স কনসালট্যান্স আর অংশ নেয়নি।

সূত্র জানায়, দ্বিতীয়বারের দাখিলকৃত আর্থিক প্রস্তাবে শহীদুল্লাহ অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস দেয় ছয় কোটি ৫০ লাখ ৯১ হাজার ৫৮ টাকার প্রস্তাব।

অথচ ভার্নাকুলার কনসালট্যান্স দেয় ১৩ কোটি ১১ লাখ ৯৮ হাজার টাকার প্রস্তাব। একই কাজে ভার্নাকুলার কনসালট্যান্স প্রায় সাড়ে ছয় কোটি টাকা বেশি লাগবে বলে প্রস্তাব দেয়। অথচ দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি এই প্রতিষ্ঠানকেই চূড়ান্ত করার চেষ্টা করছে।

শহীদুল্লাহ অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আ. মো. নু. সোবহান বলেন, ‘মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে কী এমন ঘটল যে আমরা কারিগরি প্রস্তাবে ১২ নম্বর কম পেলাম। আমরা মনে করি, ভার্নাকুলার কনসালট্যান্সকে কাজ দেওয়ার বিবেচনায় কমিটি কারিগরি প্রস্তাবে তাদের বেশি নম্বর দিয়েছে। আর যে কাজের উপদেষ্টা নিয়োগ হবে তা কোনোভাবেই ১৩ কোটি টাকার কাজ হতে পারে না।

এ ব্যাপারে দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির সভাপতি এবং এনএএএনডি প্রকল্পের পরিচালক প্রফেসর সালমা জাহানের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি  বলেন, ‘আমাদের মূল্যায়ন আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। ’


মন্তব্য