kalerkantho


ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায়

আইনজীবীদের তিন দিনের পাল্টাপাল্টি সভা শেষ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



আইনজীবীদের তিন দিনের পাল্টাপাল্টি সভা শেষ

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে দেওয়া আপিল বিভাগের রায়ের পক্ষে-বিপক্ষে সরকার ও বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের তিন দিনের পাল্টাপাল্টি প্রতিবাদ সভা শেষ হয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার। শেষ দিনে পৃথকভাবে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন দুই পক্ষের আইনজীবীরা।

এদিকে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা আবারও সারা দেশে তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। তাঁরা আগামী রবি, বুধ ও বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করবেন। আর সরকার সমর্থক আইনজীবীরা আগামী শনিবার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা দেবেন। সরকার সমর্থক আইনজীবী নেতারা বলেছেন, রায়ের অপ্রাসঙ্গিক ও অসাংবিধানিক পর্যবেক্ষণ প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

সরকার সমর্থক আইনজীবীদের সভায় যোগ দিয়ে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী ও তৃণমূল বিএনপির আহ্বায়ক ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বলেন, ‘বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা অবশ্যই জাতীয় সংসদের হাতে থাকতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। ’

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায়ে বঙ্গবন্ধু, জাতীয় সংসদ, নির্বাচন কমিশন, স্বাধীনতাযুদ্ধ নিয়ে করা পর্যবেক্ষণ প্রত্যাহারের দাবিতে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের ব্যানারে তিন দিনের প্রতিবাদসভার কর্মসূচি পালন করেন। গতকাল কর্মসূচির শেষ দিনে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের দক্ষিণ হলে সমাবেশ করেন তাঁরা। সংগঠনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ও সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা, ব্যারিস্টার রাবেয়া ভুঁইয়া, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংগঠনের সদস্যসচিব ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এমপি, অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী এমপি, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহসভাপতি মো. ওয়াজিউল্লাহ, সমিতির সাবেক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মমতাজউদ্দিন আহমেদ মেহেদী, অ্যাডভোকেট আজহার উল্লাহ ভুঁইয়া, সানজিদা খানম এমপি, এফ আর খান, পরিমল চন্দ্র গুহ, ব্যারিস্টার তানজিব-উল আলম, ইয়াদিয়া জামান, ব্যারিস্টার মোকসেদুল ইসলাম, নুরে আলম উজ্জল প্রমুখ বক্তব্য দেন।

ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কটাক্ষ করে ষোড়শ সংশোধনীতে লেখা পর্যবেক্ষণ প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত কোনো আপস নেই। আন্দোলন চলবে। শনিবার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। ’ তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে কটূক্তি করার পর এখন তাঁকে প্রশংসা করে যত বক্তব্যই দেন না কেন, তাতে ওই অপরাধ ঘুচবে না। ’

আবদুল বাসেত মজুমদার বলেন, ‘রায়ের পর্যবেক্ষণে যত কথা বলা হয়েছে তার সবই বিএনপির রাজনীতির কথা। রায়ের পর বিএনপি মিষ্টি বিতরণ করেছে। এ রায়ে জাতির প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। তাই এ রায় বাতিল করে নতুন করে রায় লিখতে হবে; যে রায়ে বঙ্গবন্ধুর স্বাধিকার আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস থাকবে। ’

ফজলে নূর তাপস এমপি বলেন, ‘ষোড়শ সংশোধনীর রায় পেনড্রাইভের রায়। কোন ল্যাপটপ থেকে এ রায়ের উত্পত্তি হয়েছে, তা আমরা জানি। সময়মতো তা প্রকাশ করা হবে। ’

বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের বিক্ষোভ : সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের উত্তর হলে গতকাল প্রতিবাদসভা করেন বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ব্যানারে এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, সমিতির সম্পাদক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন, তৈমূর আলম খন্দকার, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, অ্যাডভোকেট আবেদ রাজা, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, আরিফা জেসমিন, মির্জা আল মাহমুদ, তাহসিন আলী প্রমুখ। এর আগে তাঁরা সমিতি ভবনে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

প্রতিবাদসভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘এই রায়ে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন হয়েছে। এই রায়ের বিরুদ্ধে যাঁরা কথা বলছেন তাঁরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য বলছেন। আর সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক সরকারের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছেন। তিনি একজন সরকারি বেতনভোগী কর্মকর্তা। তিনি আইন লঙ্ঘন করেছেন। ’

জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘ষোড়শ সংশোধনীর রায় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রায়। তাই এই রায় নিয়ে সরকারের মাথাব্যথা শুরু হয়েছে। ’ মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেন, ‘আপিল বিভাগের এই রায়ের পর বর্তমান সরকার অকার্যকর হয়ে পড়েছে। বর্তমান সংসদ বাতিল করে সরকারকে পদত্যাগ করে অবিলম্বে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন দিতে হবে। ’

মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীরা সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে কথা বলছেন। তাঁরা আদালত অবমাননা করছেন। তাই আদালত অবমাননার দায়ে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। তিনি আগামী রবি, বুধ ও বৃহস্পতিবার আইনজীবী ফোরামের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এদিকে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. ইউনুস আলী আকন্দ গতকাল দুপুরে ল রিপোর্টার্স ফোরাম কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে দেওয়া রায় নিয়ে মন্ত্রী ও রাজনৈতিক নেতারা যে বক্তব্য দিচ্ছেন, তা আদালত অবমাননার শামিল। এভাবে বক্তব্য না দিয়ে আইনগত পদক্ষেপ নিতে তিনি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি আহ্বান জানান।


মন্তব্য