kalerkantho


অপহরণের দুই দিন পর ছাত্রীর লাশ বাড়ির পাশে

নিজস্ব প্রতিবেদক, নরসিংদী   

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নরসিংদীর রায়পুরায় অপহরণের দুই দিন পর চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীর লাশ মিলল তার বাড়ি থেকে মাত্র ১০ হাত দূরে। গতকাল শনিবার ভোরে উপজেলার আমিরগঞ্জ ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামে তার বাড়ি লাগায়ো একটি কলাগাছের ঝোপ থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ বলছে, প্রাথমিক তদন্তে মনে হয়েছে, অন্য কোথাও শ্বাসরোধে হত্যা করে শুক্রবার রাতে বাড়ির পাশে এনে লাশটি ফেলে রাখে দুর্বৃত্তরা। তবে কোনো কিছুই সন্দেহের বাইরে রাখছে না তারা।

নিহত স্কুল ছাত্রীর নাম সাবিনা আক্তার মিতু (১০)। সে হাসনাবাদ গ্রামের ইমান আলীর মেয়ে। মিতু হাসনাবাদ পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

এর আগে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি শহরের মহিলা কলেজ এলাকায় আবীর নামে সাত বছরের এক স্কুল ছাত্রকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার এক মাস পাঁচ দিনের মাথায় শিশু মিতুকে একই কায়দায় হত্যা করা হলো।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের লোকজন জানায়, প্রতিদিনের মতো গত বৃহস্পতিবার মিতু স্কুলে যায়; কিন্তু সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও বাড়ি ফেরেনি। এতে তার স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও কোনো সন্ধান পায়নি।

পরদিন শুক্রবার এলাকায় মাইকিং করে তার নিখোঁজ সংবাদ প্রচার করে। এর পরও কেউ মিতুর সন্ধান দিতে পারেনি।

গতকাল সকালে বাড়ি থেকে ১০ হাত দূরে কলাগাছের একটি ঝোপের ভেতর শিশুর লাশ দেখে এলাকার লোকজন। তখন মিতুর মা-বাবা ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ শনাক্ত করেন। পরে রায়পুরা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

নিহতের বাবা ইমান আলী বলেন, ‘কেউ আমার শত্রু হওয়ার মতো কোনো কারণ নেই। কিন্তু কী কারণে কারা আমার মেয়েকে এমন নৃশংসভাবে হত্যা করেছে, তা আমার জানা নেই। ’ তিনি মেয়ের হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করেন।

রায়পুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘নিহত স্কুল ছাত্রীর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধর্ষণের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে আমাদের ধারণা, পূর্বশত্রুতার জের ধরে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ’

ঘটনার তদন্তে নিয়োজিত থানার এসআই আমিরুল শিকদার বলেন, ‘মিতুর বাড়ির পাশেই কলাগাছের ঝোপ। বাড়ি থেকে মাত্র ১০ হাত দূরে লাশটি পাওয়া যায়। লাশ দেখে

মনে হচ্ছে, তাকে শুক্রবার রাতে হত্যা করা হয়েছে। ’ তাদের ধারণা, অন্য কোথাও হত্যা করে লাশটি বাড়ির পাশে কলাবাগানে এনে ফেলে রাখে দুর্বৃত্তরা।


মন্তব্য