kalerkantho


বানারীপাড়ায় কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সৎকারে বাধা দেওয়ার অভিযোগ

বরিশাল অফিস   

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বরিশালের বানারীপাড়া পৌরসভার নির্ধারিত শ্মশানে এক হিন্দু নারীর সৎকারে আওয়ামী লীগের এক কাউন্সিলর বাধা দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে থানার ওসি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতাদের হস্তক্ষেপে বিষয়টির মীমাংসা হয়। বিষয়টি নিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বানারীপাড়া পৌর শহরের বাসিন্দা ও বন্দর বাজারের ব্যবসায়ী কমল কর্মকারের মা কনক কর্মকার বুধবার মারা যান। সৎকারের জন্য তাঁর মরদেহ পৌরসভার সরকারি শ্মশানের নির্ধারিত স্থান উত্তরপার বাজারসংলগ্ন সন্ধ্যা নদীর চরে নিয়ে যাওয়া হয়। রাত ১০টার দিকে ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও যুবলীগ সদস্য আরিফুর রহমান আনোয়ার সৎকার অনুষ্ঠানে এসে বাধা দেন। বাধা পেয়ে মৃতের স্বজনরা সেখানে সৎকার না করে কনকের মরদেহ নিয়ে বরিশাল মহাশ্মশানে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। খবর পেয়ে বানারীপাড়া থানার ওসি মো. সাজ্জাদ হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা ঘটনাস্থালে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরে রাত ১২টার দিকে ওই শ্মশানেই কনক কর্মকারের সৎকার হয়।

এ ব্যাপারে কমল কর্মকার বলেন, ‘কাউন্সিলর আনোয়ার এসে ব্যক্তিমালিকানাধীন জমিতে কোনো সৎকার অনুষ্ঠান করা যাবে না বলে দাবি করেন।

আমরা জানাই যে এটি পৌরসভার শ্মশানের জন্য নির্ধারিত স্থান; কিন্তু তিনি তা মানতে রাজি হননি। তাঁর সঙ্গে আমরা কোনো ঝামেলায় জড়াতে চাইনি। তাই মায়ের মরদেহ নিয়ে মহাশ্মশানে যাওয়ার প্রস্তুতি নিই। কিন্তু বিষয়টি শোনার পর স্থানীয় লোকজন বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। ’

বানারীপাড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল জানান, পৌর শহরের উত্তরপার এলাকার সন্ধ্যা নদীর তীরে জেগে ওঠা সরকারি চরে পৌরসভার উদ্যোগে একটি শ্মশান ও একটি মুসলিম কবরস্থানের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়। ২০১৩ সালে এ দুটি স্থানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন তৎকালীন সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম মনি। কী কারণে কাউন্সিলর সৎকার অনুষ্ঠানে বাধা দিয়েছেন, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কাউন্সিলর আরিফুর রহমান আনোয়ার বলেন, ‘শ্মশানের জন্য নির্ধারিত স্থানের পাশেই ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি রয়েছে। ওই জমিতে কনক কর্মকারের সৎকার করা হচ্ছে অভিযোগ পেয়ে সেখানে যাতে সৎকার না করা হয় সেই অনুরোধ করেছিলাম; কিন্তু তারা ভুল বুঝেছে। বিষয়টি এভাবে হবে, তা আমি বুঝতে পারিনি। আমি লজ্জিত। ’

বানারীপাড়া থানার ওসি মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, রাতে জমির সীমানা নিয়ে কাউন্সিলরের সঙ্গে কিছুটা ভুল বোঝাবুঝি হওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ভুল বোঝাবুঝির অবসান হওয়ায় ওই রাতেই সৎকার নির্ধারিত স্থানেই হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

 


মন্তব্য