kalerkantho


ইন্টারপোলে দেওয়া হয়েছে ১৫০ সন্ত্রাসীর তালিকা

সরোয়ার আলম   

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ইন্টারপোলে দেওয়া হয়েছে ১৫০ সন্ত্রাসীর তালিকা

পলাতক জঙ্গি ও দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসীদের মধ্যে প্রায় দেড় শ জনের তালিকা হস্তান্তর করে পুলিশ সহযোগিতা চেয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ অর্গানাইজেশনের (ইন্টারপোল)। সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত চিফ অব পুলিশ কনফারেন্সে ইন্টারপোলের মহাসচিবসহ বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের কাছে এ তালিকা দেওয়া হয়। তালিকায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার পলাতক ১৯ আসামির নাম রয়েছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চিফ অব পুলিশ কনফারেন্সে আমরা সবাই এককাতারে এসেছি। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে কোনো সন্ত্রাস বা জঙ্গি কর্মকাণ্ড চালাতে দেব না। এসব অপরাধীকে কঠোরভাবে মোকাবেলা করা হবে। এ ক্ষেত্রে ইন্টারপোল বড় ভূমিকা পালন করবে। ইতিমধ্যে যেসব জঙ্গি, দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও অন্য অপরাধীরা আত্মগোপনে আছে তাদের ধরতে ইন্টারপোলের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। কনফারেন্সে আসা বিভিন্ন দেশের পুলিশপ্রধানদের কাছেও এসব অপরাধীর ব্যাপারে তথ্য দেওয়া হয়েছে। ’

পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি পদমর্যাদার এক কর্মকর্তা বলেন, বিভিন্ন দেশের পুলিশপ্রধানদের সঙ্গে জঙ্গি, সন্ত্রাসীসহ পলাতক অপরাধীদের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তাদের একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে।

ওই তালিকায় পলাতক অন্তত দেড় শ জনের নাম রয়েছে। ইন্টারপোল তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই করে রেড নোটিশ জারি করবে বলে জানিয়েছে। ওদিকে মিয়ানমারের কাছে একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে ইয়াবা তৈরির অবৈধ কারখানার তথ্যসহ। সেগুলো ধ্বংস করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, পুলিশপ্রধানদের নিয়ে সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে সক্রিয় জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে ঐক্যবদ্ধ ঘোষণা এসেছে। বাংলাদেশে আইএস, আল-কায়েদাসহ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর অস্তিত্ব নেই বলে পুলিশের পক্ষ থেকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে স্থানীয় উগ্রবাদী গোষ্ঠী ও জঙ্গি বেশ কিছু অঘটন ঘটিয়েছে। সে ক্ষেত্রে পলাতক জঙ্গি ও অপরাধীদের গ্রেপ্তারে সবার সহায়তা চাওয়া হয়েছে সম্মেলনে। তালিকায় নব্য জেএমবি, হুজি, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের পলাতক জঙ্গিদের পাশাপাশি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার ১৯ আসামির নাম রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামিসহ বেশ কিছু ব্যক্তি দেশের বাইরে থেকে ক্ষতিকর কাজ অব্যাহত রেখেছে। বিশেষ করে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিরা আশপাশের কয়েকটি রাষ্ট্রে অবস্থান করছে বলে তথ্য-প্রমাণ মিলছে। সে ক্ষেত্রে ইন্টারপোলের মাধ্যমে সেসব দেশের পুলিশ আসামিদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করতে পারলে দেশে ফিরিয়ে আনা যাবে।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (গোপনীয়) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘প্রতিটি জঙ্গি সংগঠনের পেছনে আমাদের আলাদা গোয়েন্দা উইং কাজ করছে। এখন পর্যন্ত যারা পলাতক রয়েছে তারা কেউ আমাদের নজরদারির বাইরে নেই; যেহেতু পুলিশের পাশাপাশি জনগণও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। সুতরাং ধীরে ধীরে সবাইকেই গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে। ইন্টারপোল আমাদের সব ধরনের সহায়তা করবে। ’


মন্তব্য