kalerkantho


খুলনায় জলে ভাসল দেশে তৈরি দুই যুদ্ধজাহাজ

খুলনা অফিস   

১৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জন্য নির্মিত সামরিক জাহাজ (বানৌজা) লার্জ প্যাট্রল ক্রাফট ও সাবমেরিন হ্যান্ডলিং টাগ বোটের উদ্বোধন ঘোষণা (লঞ্চিং) করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে খুলনা শিপইয়ার্ডে নৌবাহিনীর প্রধান ও খুলনা শিপইয়ার্ডের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডমিরাল এম নিজামউদ্দিন আহমেদ প্রধান অতিথি হিসেবে দুটি জাহাজের উদ্বোধন করেন। খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মাণ করা হয়েছে এ দুটি সামরিক নৌযান।

শিপইয়ার্ডের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বানৌজা যুদ্ধ জাহাজের দৈর্ঘ্য ৬৪ দশমিক ২০ মিটার ও প্রস্থ ৯ মিটার। এর আকার আয়তন অপেক্ষাকৃত কিছুটা ছোট হলেও জাহাজটির সক্ষমতা সাম্প্রতিক বিশ্বে ব্যবহৃত স্টেট অব দ্য আর্টস টেকনোলজি-সংবলিত যুদ্ধ জাহাজের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। এ জাহাজে রয়েছে আধুনিক সামরিক সক্ষমতা যেমন সারফেস টার্গেটের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য ৭৬ মিলিমিটার এবং ৩০ মিলিমিটার গান, সাবমেরিনের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য টর্পেডো লঞ্চার এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে এসব অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহারের জন্য অত্যাধুনিক সনার, সার্ভিলেন্স রাডার ও কমব্যাট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেক, সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান ও সহকারী নৌপ্রধান (এম) রিয়ার অ্যাডমিরাল এম শফিউল আজম। স্বাগত বক্তৃতা দেন খুলনা শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমোডর কাজী কামরুল হাসান। এ সময় খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা এবং খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকরা উপস্থিত ছিল।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নিজামউদ্দিন আহমেদ বলেন, খুলনা শিপইয়ার্ড ক্রমান্বয়ে উন্নয়নশীল একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। বানৌজা জাহাজ একটি অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজ।

দেশের সমুদ্র এলাকায় নিরাপত্তা, সম্পদ আহরণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার জন্য এ ধরনের যুদ্ধজাহাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। জাহাজশিল্পের বিকাশে সরকার পায়রা বন্দরের নিকটবর্তী আরো একটি আধুনিক শিপইয়ার্ড নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।


মন্তব্য