kalerkantho


স্বাধীনতা দিবসে ‘অদম্য পদযাত্রা’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



যাপিত জীবনে হাঁটা প্রাত্যহিক কাজের অংশ। আমাদের হাঁটতে হয়—প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে। সুনির্দিষ্ট অভিপ্রায়ে হাঁটলে আটপৌরে কাজটিও অর্থবহ হতে পারে, যেমনটা হয় অভিযাত্রীদের ক্ষেত্রে। স্বাধীনতা দিবস উদ্‌যাপনের লক্ষ্যে বর্তমান প্রজন্মের ‘অভিযাত্রী’ চার বছর ধরে শহীদ মিনার থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত পদযাত্রা করে আসছে। এই পায়ে হাঁটা কর্মসূচিতে গত ২০১৬ সালে যুক্ত হয়েছিল এক নবতর মাত্রা। সেবার পদযাত্রাটি নিবেদিত হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণ তহবিল সংগ্রহের উদ্দেশ্যে। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও এই পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

‘শোক থেকে শক্তি—অদম্য পদযাত্রা’ শীর্ষক এ পদযাত্রা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাতে গতকাল বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। গতকাল সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এভারেস্ট বিজয়ী ও ‘অভিযাত্রী’ সদস্য নিশাত মজুমদার। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন পর্বতারোহী সংগঠক ও প্রখ্যাত পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ও সদস্যসচিব জিয়াউদ্দিন তারিক আলী ও ট্রাস্টি মফিদুল হক।

আয়োজকরা জানান, ২৬ মার্চ ভোর ৬টায় শহীদ মিনার থেকে হাঁটা শুরু করে পদযাত্রী দল জগন্নাথ হল বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে ফুলার রোডের পাশ দিয়ে টিএসসি পার হয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশ করবে।

স্মৃতিবিজড়িত সেই উদ্যানের স্বাধীনতা স্মারক শিখা চিরন্তন প্রদক্ষিণ করে শাহবাগ হয়ে কাঁটাবন, সায়েন্স ল্যাব, পিলখানা, জিগাতলা পেরিয়ে পদযাত্রা এগিয়ে যাবে মোহাম্মদপুর শারীরিক শিক্ষা কলেজের দিকে। এখানে একাত্তরে বর্বর পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোসর আলবদররা পাশবিক নির্যাতনের ভয়ংকর ঘাঁটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। বুদ্ধিজীবীদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন শেষে তাঁদের এখান থেকে নেওয়া হয় বধ্যভূমিতে। মোহাম্মদপুরের এ স্থানে শ্রদ্ধা নিবেদন ও স্মৃতিস্মারক উন্মোচন করে অভিযাত্রী দল হাঁটতে থাকবে বধ্যভূমির উদ্দেশে। সেখান থেকে আমিনবাজার হয়ে সাভারের উদ্দেশে যাত্রা করবে।

আয়োজকরা জানান, আমিনবাজার থেকে দলটি যাবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে সাভারের উদ্দেশে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ঢোকার আগে ডেইরি ফার্মের গেটে শহীদ টিটোর সমাধির পাশে দাঁড়িয়ে জানাবে বিনম্র শ্রদ্ধা। অসম সমরে পাকিস্তানি বাহিনীকে নাজেহাল করে শহীদ হন অমিত তেজ তরুণ টিটো।


মন্তব্য