kalerkantho


ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালতের নির্দেশ

দুই বাংলাদেশিকে ক্ষতিপূরণ দেবে হাঙ্গেরি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



দুই বাংলাদেশির আশ্রয়ের আবেদন প্রত্যাখ্যান করে তাঁদের সার্বিয়ায় পাঠিয়ে দেওয়ার ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রত্যেককে ১০ হাজার ইউরো প্রদান করতে হবে হাঙ্গেরি সরকারকে। গতকাল মঙ্গলবার এ নির্দেশ দিয়েছেন ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত (ইসিএইচআর)। মোহাম্মদ ইলিয়াস ও আলী আহমেদ বলকান রুট ঘুরে গ্রিস হয়ে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে হাঙ্গেরিতে পৌঁছান। অসংখ্য সিরীয় শরণার্থীর সঙ্গে মিশে গিয়ে তাঁরা সেখানে যান। হাঙ্গেরিতে পৌঁছেই তাঁরা আশ্রয়ের আবেদন করেন। ওই সময় তাঁদের আবেদন গ্রহণ না করে হাঙ্গেরি-সার্বিয়ার মাঝখানে ট্রানজিট জোনে আটকে রাখা হয়। ২৩ দিন আটকে রাখার পর তাঁদের সার্বিয়ায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। হাঙ্গেরি সরকার অবশ্য দাবি করেছে, ২০১৫ সালের জুলাইয়ের এক ঘোষণা অনুসারে সার্বিয়াকে তারা নিরাপদ দেশের তালিকাভুক্ত করেছে।

ইসিএইচআরের রায়ে বলা হয়, ‘যথাযথ বিচারিক পর্যালোচনার মধ্য দিয়ে না গিয়ে তাদের (দুই বাংলাদেশির) স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে।’ তাঁদের আইনি সহায়তা দিতে চাইলেও নিরাপত্তাবেষ্টিত ওই এলাকায় আইনজীবীরা প্রবেশ করতে পারেননি উল্লেখ করে আদালত দুই বাংলাদেশির প্রত্যেককে ১০ হাজার ইউরো ক্ষতিপূরণ প্রদানে হাঙ্গেরি সরকারকে নির্দেশ দেন। আদালতের রায়ে আরো বলা হয়, ‘হাঙ্গেরি থেকে তাদের সার্বিয়ায় সরিয়ে দেওয়ার কারণে গ্রিসে তারা অমানবিক ও মর্যাদাহানিকর আচরণের শিকার হতে পারে, এমন ঝুঁকি তৈরি হয়েছিল।’ দুই বাংলাদেশিকে গ্রিসে ফেরত পাঠানো হতে পারে, জাতিসংঘের পক্ষ থেকেও এমন আশঙ্কা করা হয়েছিল বলে আদালত উল্লেখ করেন। ২০১১ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিচারিক আদালতের রায়ে আশ্রয়প্রার্থীদের গ্রিসে ফেরত পাঠানো নিষিদ্ধ করা হয়। গ্রিসে ফেরত পাঠালে তাঁরা অমানবিক পরিস্থিতির শিকার হতে পারেন, এমন আশঙ্কা থেকে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করেন আদালত। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য