kalerkantho


আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবস আজ

নদী রক্ষায় উদ্যোগ নিতে হবে নিজেদেরই

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নদী রক্ষায় উদ্যোগ নিতে হবে নিজেদেরই

নদীমাতৃক বাংলাদেশের নদীগুলো কালের বিবর্তনে মরা খালে পরিণত হচ্ছে। ভারত অভিন্ন নদীগুলোর উজানে বাঁধ দিয়ে পানি প্রত্যাহার করায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। হারিয়ে যেতে বসেছে নদীগুলোর অস্তিত্ব। আর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে কৃষি, পরিবেশসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে। এমনই বাস্তবতায় আজ মঙ্গলবার পালিত হচ্ছে ‘আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবস’।

নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, দিনটিকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে নানা কর্মসূচি পালন করছে পরিবেশবাদী ও নদী নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংগঠন। উদ্দেশ্য, নদীর জন্য করণীয় সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি এবং সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করা।

নদী রক্ষায় করণীয় সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার লক্ষ্যে ১৯৯৭ সাল থেকে প্রতিবছর ১৪ মার্চ বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। ব্রাজিলের কুরিতিয়া শহরে ১৯৯৭ সালে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সমাবেশ থেকে দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

রংপুর অফিস জানায়, উত্তরের প্রাচীনতম জনপদ রংপুর, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার প্রায় ৫০টি নদী এখন মৃতপ্রায়। উজানের প্রবাহ না থাকায় নাব্যতা সংকটে শুষ্ক মৌসুমে কোনো কোনো নদীতে হাঁটুপানিও থাকে না।

তিস্তার বুকজুড়ে এখন ধু ধু বালুচর। শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই তিস্তায় এখন হাঁটুপানি। হেঁটে পার হওয়া যায় একসময়ের প্রমত্তা তিস্তা। উজানে ভারত ব্যারাজ নির্মাণ করে একতরফা পানি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় বাংলাদেশের ১১২ মাইল দীর্ঘ তিস্তার এই হাল। জেগে উঠেছে অসংখ্য চর-ডুবোচর। তিস্তার বুকজুড়ে এখন ফসলের আবাদ হচ্ছে।

করতোয়া নদীও পানিশূন্যতায় অস্তিত্ব সংকটে ধুঁকছে। ক্ষীণ একটা প্রবাহ গাইবান্ধা ও বগুড়ায় প্রবেশ করে কিছুটা গতি পাওয়ার চেষ্টা করলেও তা এখন শুধুই ইতিহাস। রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ওপর দিয়ে একসময় প্রবাহিত আলাইকুড়ি নদী পরিণত হয়েছে মরা খালে। পানিশূন্য ঘাঘট নদীর বুকে এখন আবাদ হচ্ছে বিভিন্ন ফসল। একই অবস্থা মানাস নদীরও।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী আমিনুর ইসলাম বলেন, ভারত একতরফাভাবে পানি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় একসময়ের জনগুরুত্বপূর্ণ নদী দুটি গুরুত্ব হারিয়েছে। একই কারণে রংপুর অঞ্চলের অর্ধশতাধিক নদীতে পানির অভাব প্রকট আকার ধারণ করেছে। নদী খননের জন্য ছোট একটি প্রকল্প প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে।

রিভারাইন পিপলের পরিচালক ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেন, ‘অবৈধ বাঁধ অপসারণ, নদীর তলদেশ খনন, ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে উৎসমুখ উন্মোচন করে কৃত্রিম ক্যানেলের মাধ্যমে ছোট নদীগুলোর সঙ্গে বড় নদীর সংযোগ সাধন করা গেলে কৃষিপ্রধান এই অঞ্চলের নদীগুলো আবার যৌবনে ফিরবে। এ ক্ষেত্রে পানি প্রদানে ভারতের আশ্বাসে ভর করে থাকলে চলবে না। সরকারকেই কৃষিনির্ভর অর্থনীতির কথা ভেবে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

কর্মসূচি : নদীকৃত্য দিবস পালন উপলক্ষে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় দুই দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। প্রথম দিনে গতকাল সোমবার নদী বাঁচানোর দাবিতে তিস্তার বুকে সমাবেশ হয়েছে। রংপুরের তিস্তাপারে সমাবেশ হয়েছে। ড. তুহিন ওয়াদুদের সভাপতিত্বে এতে বক্তৃতা করেন রিভারাইন পিপলের আহ্বায়ক ও রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক উমর ফারুক, সংগঠক ও শিক্ষক ড. রুহুল আমিন, সিদ্দিক মেমোরিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম মুকুল প্রমুখ। সমাবেশে নদী নিয়ে নিজের লেখা ও সুর করা গান পরিবেশন করেন রিভারাইন পিপলের কর্মী সঞ্জয় চৌধুরী।

কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে আজ মঙ্গলবার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘নদীর জন্য নদী তোমার করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

গান-কবিতায় সিলেটে কর্মসূচি শুরু : সিলেট অফিস জানায়, নদীবিষয়ক গান ও কবিতা পরিবেশনের মধ্য দিয়ে গতকাল সিলেটে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবস উপলক্ষে পাঁচ দিনব্যাপী কর্মসূচি। বিকেলে নগরের সুরমা নদীর চাঁদনী ঘাটের সিঁড়িতে উন্মুক্ত মঞ্চে এ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখা, সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার ও ওয়াটারকিপারস বাংলাদেশ যৌথভাবে এর আয়োজন করেছে। আদালতের নির্দেশনায় মেয়র পদ ফিরে পাওয়ার পর গতকালই প্রথম কোনো অনুষ্ঠানে অংশ নিলেন মেয়র আরিফ। কর্মসূচির উদ্বোধন করে তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব ফিরে পেয়ে পরিবেশ সংরক্ষণে কাজ করব। ’ পরে সুরমা নদীতে মাছের পোনা অবমুক্ত করে পাঁচ দিনব্যাপী নদীবিষয়ক এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন তিনি।


মন্তব্য